পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীর উপজেলায় মিজান খন্দকার (২৫) নামের এক যুবক স্ত্রীর সঙ্গে অভিমান করে কীটনাশক পান করে আত্মহত্যা করেছে। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার চরমোন্তাজ ইউনিয়নের চরলক্ষ্মী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মিজান ওই গ্রামের ওয়াহেদ খন্দকারের ছেলে।

তার লাশ উদ্ধার করে গলাচিপা পুলিশ ময়নাতদন্তের জন্য পটুয়াখালী মর্গে পাঠিয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, প্রায় দুই বছর আগে মিজান ভালোবেসে বিয়ে করে বাউফল উপজেলার কালাইয়া ইউনিয়নের নগরহাট গ্রামের কালাম হোসেনের মেয়ে শ্যামলী বেগমকে। এ বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই তাদের মধ্যে কলহ শুরু হয়। প্রায়ই তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে ঝগড়াঝাটি হত। মঙ্গলবার সকালে টি-শার্ট ধুয়ে না দেয়ায় স্ত্রীর সঙ্গে কথা কাটাকাটি করে মিজান ঘর থেকে বের হয়ে চালের পোকা মারার ওষুধ (গ্যাস ট্যাবলেট) খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাৎক্ষণিক তাকে স্পিডবোটে গলাচিপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষণা করেন।

গলাচিপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ছালাউদ্দিন বলেন, আমাদের এখানে নিয়ে আসার আগেই সে মারা যায়।

ইউপি সদস্য সালাম প্যাদা বলেন, বউর সঙ্গে ঝগড়াঝাটি হওয়ায় অভিমান করে চালের পোকা মারার গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে মিজান আত্মহত্যা করে। এরআগেও দুই-তিন বার সে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। মিজান কৃষিতে ডিপ্লোমা করেছিল।

এ ব্যাপারে রাঙ্গাবালী থানার ওসি মিলন কৃষ্ণ মিত্র বলেন, মিজান নামের এক যুবক আত্মহত্যা করেছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here