প্রেমে বাধা দেয়ায় বন্ধু কর্তৃক অপহরণ ও খুনের দুইমাস ১৮ দিন পর ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ার এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ (এ প্লাস) পাওয়া স্কুলছাত্র মেহেদী হাসানের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি টিম বুধবার রাতে উপজেলার পলাশীহাটা বাজারে উজ্জলের পরিত্যক্ত গুদাম ঘরের মেঝেতে মাটিচাপা কবর খুঁড়ে মেহেদী হাসানের মরদেহ উদ্ধার করে।

ময়মনসিংহ গোয়েন্দা পুলিশের ওসি মো আশিকুর রহমান বুধবার রাতে এই খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে বুধবার বিকালে ভালুকা উপজেলার সিডস্টোর বাজার থেকে মেহেদী হাসান হত্যার আসামী আল আমীন (২২) ও তুষার (২৩) এবং রাতে তুষারের বড়ভাই উজ্জলকে গ্রেফতার করে গোয়েন্দা পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে প্রেমে বাধা হয়ে দাঁড়ানোয় মেহেদীকে হত্যার পর লাশ গুম করতে মাটিচাপা দেয়ার দায় স্বীকার করে আল আমিন ও তুষার। পরে রাত ১২টায় গ্রেফতারদের সাথে নিয়ে পলাশীহাটা বাজারে তুষারের বড়ভাই উজ্জলের পরিত্যক্ত গুদাম ঘরের মেঝে খুঁড়ে পুলিশ মেহেদীর লাশ উদ্ধার করে। উদ্ধার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

৬ মার্চ এসএসসি পরীক্ষা শেষে উপজেলার কেশরগঞ্জ বাজারে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হলে মেহেদী আর বাড়িতে ফেরেনি। গ্রেফতার দুই যুবক মেহেদীর বন্ধু এবং একই এলাকার বাসিন্দা বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এদিকে তুষারের ফাঁসি চেয়েছেন তার বাবা শাহজাহান।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here