মাদকাসক্ত পুলিশ সদস্যদেরও ডোপ টেস্ট করা হবে। টেস্টে মাদক নেওয়ার বিষয়টি প্রমাণিত হলে সঙ্গে সঙ্গে তাকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হবে। বুধবার পুলিশের রংপুর রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক এ কথা জানান।

নিজ অফিসের মিলনায়তনে আসন্ন রমজান উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি কীভাবে নিয়ন্ত্রণ রাখা যায়-এ নিয়ে সংবাদ সম্মেলন তিনি এ কথা বলেন।

ডিআইজি গোলাম ফারুক বলেন, আমাদের কাছে খবর আছে কিছু অসাধু পুলিশ, রাজনীতিক ও সরকারি কর্মকর্তা, কর্মচারি মাদক সেবন ও ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। তাদের চিহ্নিত করে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়ন করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো বলেন, রমজান ও ঈদকে সামনে রেখে নগরীর প্রতিটি মার্কেটে সিসি ক্যামেরা লাগানো হবে। কোনো প্রকার চাঁদাবাজি কিংবা ইভটিজিং ঘটনা ঘটতে দেওয়া যাবে না। খাদ্যে ভেজালরোধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, প্রকৃত ড্রাইভার ছাড়া কাউকে গাড়ি চালাতে দেওয়া হবে না। হাইওয়েগুলোতে পুলিশ ও র‌্যাবের কঠোর নজরদারি থাকবে, যাতে কেউ চাঁদাবজি করতে না পারে।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রংপুর র‌্যাব-১৩ এর অধিনায়ক মোজাম্মেল হক, বিভাগের ৮ জেলার পুলিশ সুপার, ভোক্তা অধিকার দপ্তরের কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here