দেরাদুনে জুনের প্রথম সপ্তাহে আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। এই সিরিজের আগে বাংলাদেশ শিবিরে আগাম আতঙ্ক হিসাবে কাজ করছেন আফগান লেগ স্পিনার রশিদ খান। যিনি বর্তমানে টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিংয়ে সেরা বোলার। আবার আইপিএলে হায়দারাবাদের হয়ে মাঠ মাতাচ্ছেন পুরো দমে। ফলে রশিদকে কিভাবে সামলানো যায়, তার কৌশল রপ্ত করছে টাইগার শিবির।

তবে ব্যতিক্রম তামিম ইকবাল। বাংলাদেশের এই হার্ড হিটার ওপেনার রশিদকে নিয়ে অতি ভাবনা প্রসঙ্গে শনিবার বলেন, ‘শুধু রশিদ নয়, কোনো কিছু নিয়েই বেশি চিন্তা করা ভালো না। ভালো বোলার সে অবশ্যই। হয়ত ক্যারিয়ারের সেরা বোলিং করছে এখন। সবই ঠিক আছে। কিন্তু ওকে নিয়ে চিন্তা না করে নিজেদেরকে নিয়ে ভাবাই আমাদের জন্য বেশি ভালো হবে।’

গত বিপিএলে রশিদ খান খেলেছিলেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে। যে দলের অধিনায়ক ছিলেন তামিম ইকবাল। ফলে রশিদকে কাছ থেকে দেখার অভিজ্ঞতা আছে তামিমের।

এ প্রসঙ্গে তামিম বলেন, ‘ওর কুইক আর্ম অ্যাকশনটাই সবচেয়ে কঠিন ব্যাটসম্যানদের জন্য। ছয় মাস আগেই ওর অ্যাকুরেসি এত ভালো ছিল না। তবে এখন উন্নতি করেছে, খুব অ্যাকুরেট। আর সাফল্যও পাচ্ছে। বিশ্বের সেরা সব ব্যাটসম্যানকে বিভ্রান্ত করছে। খুব ভালো বোলিং করছে। কিন্তু এমন নয় যে ওকে খেলাই যাবে না। আমরা যদি নিজেদের ভালোভাবে মেলে ধরতে পারি, কেন নয়! আর আমি এমন নই যে একজনের প্রতিই মনোযোগ দেব। কারণ ওদের দলে আরও অনেক ভালো ভালো ক্রিকেটার আছে। অনেক ভালো ভালো বোলার আছে। শুধু একজনের দিকেই মন দেয়া মানে আগে থেকেই নেতিবাচক মানসিকতা নিয়ে যাওয়া। সন্দেহ নেই, এই মুহূর্তে সে হয়ত বিশ্বের সেরা টি-টোয়েন্টি বোলার। তবে আমরা এরকম অনেক চ্যালেঞ্জ জিতে অনেক ভালো খেলেছি। এবারও আশা করব যে এমনটিই হবে।’

আফগান সিরিজে ব্যক্তিগত লক্ষ্য প্রসঙ্গে তামিম বলেন, ‘ছয় ওভারের মধ্যে আউট হয়ে গেলে ব্যাপার ভিন্ন। ওপেনারদের এই ঝুঁকি নিতেই হবে। কিন্তু যদি সেটা পার করে দিতে পারি, তাহলে আমার লক্ষ্য থাকবে লম্বা ইনিংস খেলা। ছয়ের পর থেকে ১৫ ওভারের সময়টুকুই টি-টোয়েন্টিতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। ওখানে যদি আমরা বেশি উইকেট না হারাই এবং একজন যদি লম্বা ইনিংস খেলতে পারে, সেটিই আমাদের জন্য সবচেয়ে ভালো হবে। আমি ওরকম করতে পারলে দারুণ হবে।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here