ঘর থেকে ডেকে নিয়ে এক সৌদি প্রবাসীর স্ত্রীকে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে এক যুবকের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার (২৭ মে) মধ্যরাতে মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার ছোট বুতুনী গ্রামে।

সৌদী প্রবাসী নজরুল ইসলামের স্ত্রী আয়েশা বেগম (৩৫) তার অষ্টম শ্রেণি পড়ুয়া একমাত্র ছেলে মবিনকে নিয়ে স্বামীর বাড়িতে থাকতেন। ১২ বছর বয়সী মেয়ে সোহানা আক্তার একটি আবাসিক মাদ্রাসায় পড়ে এবং সে সেখানেই থাকে।

আয়েশা বেগমের ছেলে মবিন জানায়, পার্শ্ববর্তী বিলবরইল গ্রামের মনোর উদ্দিন বারন বেপারীর ছেলে আজাদ (৪০) রাত ১টার দিকে তার মাকে ঘর থেকে জোড় করে টেনে হেচড়ে বাইরে নিয়ে যায় এবং ঘরের বাইরে শিকল লাগিয়ে দেয়। এরপর বাড়ির পার্শ্বের একটি পরিত্যক্ত স্থানে মৃতপ্রায় অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে তাকে মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে নেয়ার পথে সে মারা যায়।

আয়েশা বেগমকে নানাভাবে শারীরিক নির্যাতন করলে সে বাকরুদ্ধ হয় এবং কিছুক্ষণ পরেই তার মৃত্যু হয়। এর পেছনে তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন জড়িত থাকতে পারে তাদের ধারণা। তারা এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক বিচার দাবি করেন।

শিবালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুল্লাহ সরকার বলেন, মরদেহটির ময়নাতদন্তের পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

স্বামী নজরুল ইসলাম গত বছরের মে মাসে ৭ লাখ টাকা ধারদেনা করে সৌদি আরব গেছেন। এ নিয়ে শ্বশুরবাড়ির লোকজনের সাথে টানাপোড়েন চলছিল তার।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here