সাকিবের কথাবার্তা স্ট্রেইফরোয়ার্ড। তা সবারই জানা। সোমবার তা আরও একবার দেখা গেল হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরের ভিআইপি টার্মিনালে। আইপিএল খেলে আজ দেশে ফিরেছেন। আগামীকাল মঙ্গলবারই আবার ভারদের দেরাদুনের উদ্দেশ্যে সতীর্থদের নিয়ে ঢাকা ছাড়বেন সাকিব। উদ্দেশ্যে আফগানিস্তানের সঙ্গে টি-টোয়েন্টি সিরিজ।

আফগান সিরিজ বলেই উঠে আসছে তারকা লেগ স্পিনার রশিদ খান প্রসঙ্গ। যিনি আফগানদের বোলিংয়ে মূল অস্ত্র। সতীর্থ হিসাবে রশিদের কারুকার্য সাকিব দেখেছেন আইপিএলে হায়দরাবাদের হয়ে। তারপরও রশিদকে নিয়ে বেশি আলোচনায় বিরক্তই সাকিব।

রশিদ খানকে নিয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে। এমন প্রসঙ্গে সাকিব বলেন, ‘কারা আলোচনা করে? প্রশ্ন আপনারা করলে প্লেয়াররা উত্তর দিচ্ছে? নাকি প্লেয়াররা আলোচনা করছে? যা হোক, ঠিক আছে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে যারা খেলে সবাই ভাল বোলার। কেউ ভাল বল করবে কেউ খারাপ করবে। ভাল ব্যাটসম্যানরা সেটাকে ভালভাবে হ্যান্ডেল করবে সেটাই নিয়ম।’

শেষ প্রশ্নটাও আবার রশিদ খানকে নিয়ে। তারকা এই লেগ স্পিনারকে নিয়ে কোন আলাদা পরিকল্পনা আছে কি না। যেহেতু আলোচনা হচ্ছে বেশি। সাকিবের জবাব এবার তীরের চেয়েও তীক্ষ্ণ, ‘প্রশ্ন আপনারা করলে আলোচনা হবেই। আমি উত্তর দিলাম না, আলোচনাও হলো না।’

দেরাদুনে টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশের চেয়ে আফগানিস্তানকেই এগিয়ে রাখছেন সাকিব, ‘আসলে টি-টোয়েন্টিতে ফেবারিট বা অফেবারিট এই ধরনের কোন তকমা থাকে না। যে কোন দল যেকোনো সময় যে কাউকে হারাতে পারে। যেহেতু আফগানিস্তান আমাদের চাইতে দুই ধাপ এগিয়ে, সুতরাং বলবো ওরাই ফেবারিট।’

আইপিএল কেমন কাটলো, এমন প্রশ্নের জবাবে সাকিব বলেন, ‘ভালই। হয়তো আরেকটু ভালো হতে পারতো। তবে সব মিলিয়ে সন্তুষ্ট, যে রেজাল্ট হয়েছে টিমের। ব্যক্তিগত দিক থেকেও সন্তুষ্ট। কিন্তু একটা অতৃপ্তি আছে সেটা হলো প্রতি ম্যাচেই ভাল শুরুর পরেও স্কোরটা বড় করতে পারিনি।’

দেরাদুনে আগামী ১ জুন একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। মূল লড়াই শুরু এর দুইদিন পর। ৩ জুন প্রথম টি-টোয়েন্টি। ৫ ও ৭ জুন হবে দ্বিতীয় ও তৃতীয় ম্যাচ। সবগুলো ম্যাচই হবে দেরাদুনে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here