আরেকবার বিশ্বকাপটা নিজেদের করে নিতে সবকিছু ছাড়তে প্রস্তুত হয়ে আছেন জার্মানির খেলোয়াড়রা। সবাই যেন খেলার প্রতিই পূর্ণ মনোযোগ দিতে পারেন তাই বিশ্বকাপ চলাকালীন গার্লফ্রেন্ড বা স্ত্রীদের সঙ্গেও দেখা করতে পারবেন না জার্মান খেলোয়াড়রা। এমনকি নিষিদ্ধ হয়েছে মদ ও সঙ্গমও।

জার্মানির কোচ জোয়াকিম লো জানিয়েছেন, পঞ্চমবারের মতো বিশ্বকাপ জিততে খেলোয়াড়দের উপর যে কোনো ধরণের কঠোরতা আরোপ করতে রাজি তিনি। যেমন বিশ্বকাপ চলার সময় তার দলের ফুটবলাররা স্ত্রী-সন্তান কিংবা গার্লফ্রেন্ডের কাছে ঘেঁষতে পারবেন না। অবশ্য শোবার আগে অ্যালকোহল পানে আপত্তি নেই লো’র। তবে খেলোয়াড়দের সেক্সে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে জার্মান কোচের সাফ কথা, ‘আত্মার চেয়ে দল বেশি গুরুত্বপূর্ণ।’

ইতালিয়ান দৈনিক ‘লা গাজেতা দেলো স্পোর্ট’ এর এক প্রতিবেদনে এসেছে, জার্মানির খেলোয়াড়রা বিশ্বকাপের প্রস্তুতির সময় স্ত্রী, সন্তান আর গার্লফ্রেন্ডকে সঙ্গে রাখতে পারবেন। কিন্তু টুর্নামেন্ট চলার সময় পারবেন না।

টুর্নামেন্ট চলাকালীন সব মানা

জানা গেছে, কোট জোয়াকিম লো খেলোয়াড়দের ওপর আরো কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করেছেন। যেমন টুর্নামেন্ট চলার সময় হোটেল কিংবা লকার রুম থেকে কোনো ধরণের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করতে পারবেন না তারা। যদি এমন কিছুর শক্ত প্রমাণ পাওয়া যায়, তবে দল থেকে বাদ পড়ার ঝুঁকিতে থাকবেন।

দলের কাছে কি চাহিদা সেটা পরিষ্কারভাবেই জানিয়ে দিয়েছেন জোয়াকিম লো। তিনি বলেন, ‘আত্মার চেয়ে দলের গুরুত্ব অনেক বেশি। ছেলেরা আমাদের আচরণগত নির্দেশিকা ভালোমতোই জানে। তারা আমাদের লক্ষ্য জানে, কাজ সম্পর্কেও জানে। আমরা একটা পাজলের অংশ, কেউই বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হতে পারবে না (পাজল না মেলাতে পারলে)। সবাইকে দলে তাদের দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন থাকতে হবে। আত্মার চাহিদাকে অবশ্যই আটকে রাখতে হবে।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here