ভুয়া ব্যবহারকারী শনাক্ত ও মানুষের ওপর ফেসবুকের প্রভাব পর্যবেক্ষণে এক মাস সাইটটি বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পাপুয়া নিউগিনি।

বুধবার বিবিসি জানায়, পাপুয়া নিউ গিনির যোগাযোগ মন্ত্রী স্যাম বাসিল বলেছেন, পর্নোগ্রাফি এবং ভুয়া খবর পোস্ট করেন এমন ইউজারদের শনাক্ত করা হবে।

তিনি আরও জানান, তার দেশে নিজস্ব সামাজিক মাধ্যমও চালু করা হতে পারে।

ভুয়া খবর ছড়ানো, নির্বাচনকে প্রভাবিত করা এবং ইউজারদের তথ্যের অপব্যবহার করার অভিযোগে গত বছরের শেষ থেকে ফেসবুক তীব্র সমালোচনার মুখোমুখি হয়।

পাপুয়া নিউগিনির ১০% মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করলেও, দেশটি অনলাইন সেবার মান নিয়ন্ত্রণে সরকার বেশ সচেতন।

ফেসবুক মানুষ কিভাবে ব্যবহার করে তা একমাস ধরে বিশ্লেষণ করবে দেশটির সরকার। একই সাথে তারা সেখানে ২০১৬ সালে প্রবর্তিত সাইবার অপরাধ আইনের আওতায়ও নিয়ে আসবে অপরাধীদের।

বাসিল বলেন, ‘এই সময়ের মধ্যে ভুয়া একাউন্ট, পর্নোগ্রাফি পোস্ট করে এবং ভুল তথ্য ছড়ায় এমন ইউজারদের শনাক্ত করতে তথ্য সংগ্রহ করা হবে। আমরা পাপুয়া নিউগিনির নাগরিকদের জন্য নতুন সোশ্যাল নেটওয়ার্কের সাইট তৈরির সম্ভাবনাও যাচাই করে দেখবো। এখানে শুধু ইউজাররা শুধু তাদের আসল প্রোফাইল ব্যবহার করতে পারবেন। প্রয়োজনে আমরা নিজস্ব অ্যাপ ডেভেলপারদের দিয়ে বিশেষভাবে পাপুয়া নিউগিনির জন্য উপযোগী একটি সাইট তৈরি করাতে পারি।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here