সন্ধ্যায় বাড়ির পাশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে বসে গল্প করছিলো ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী মারমা সম্প্রদায়ের তিন কিশোরী ও এক কিশোর। তারা সবাই দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী। হঠাৎ ৪ যুবক তাদের ভয় দেখিয়ে তুলে নিয়ে পাশের সেগুন বাগানে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের পর মঙ্গলবার রাতে ওই ৪ যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তাররা হলেন স্থানীয় পচাই কারবারি পাড়ার সুইলা প্রু মারমার ছেলে সাচিং মারমা (২০), একই এলাকার উথাই মারামার ছেলে সাইফু মারমা (২০), মানিকছড়ি মুখ চেয়ারম্যান পাড়ার খিলু অং মারমার ছেলে থুইচিং মং মারমা (২০) ও একই এলাকার মক্কা ফ্যাদা চাকমার ছেলে হৃদয় চাকমা (২০)।

মহালছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নুরে আলম ফকির এসব তথ্য জানান।

পুলিশ ও ধর্ষিতার পরিবার সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মহালছড়ি উপজেলার মাইচছড়িতে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে তিন বান্ধবী বসে গল্প করছিলো। সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে থুইচিং মং মারমা, সাচিং মারমা, সাইফু মারমা ও হৃদয় চাকমা নামে ওই চার যুবক তিন ছাত্রীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে পার্শ্ববর্তী সেগুন বাগানে নিয়ে যায়। থুইচিং মং মারমা পাহারা দেয় এবং বাকি ৩ যুবক তিন কিশোরীকে ধর্ষণ করে।

মামলার এজাহারের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, ওই চার যুবক তুলে নিয়ে জোর করে তিন কিশোরীকে ধর্ষণ করে। পরে এক কিশোরী পালিয়ে গ্রামে গিয়ে ঘটনা প্রকাশ করলে স্থানীয়রা গিয়ে বাকি ২ কিশোরীকে উদ্ধার করে। এসময় ওই চার যুবক পালিয়ে যায়।

পরে ধর্ষিতাদের ২ জনের বাবা থানায় গিয়ে মামলা দায়ের করেন।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃতরা ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে। ধর্ষিতা তিন ছাত্রীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলেও জানান ওসি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here