রাজধানীর সবুজবাগের শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী সাফিয়া আক্তার শোভা। তার পুরো পরিবারই মাদক ব্যবসায় যুক্ত। এ যেন তাদের পারিবারিক ব্যবসা। স্বামী, দুই ছেলে, মেয়ে ও মেয়ে জামাই- সবাই এখন মাদক কারবারী। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) একটি গোয়েন্দা প্রতিবেদনে শোভাকে ঢাকার অন্যতম মাদকরানী হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। তার নামে শুধুমাত্র সবুজবাগ থানাতেই মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে রয়েছে ১৬ মামলা।

সবুজবাগের ওহাব কলোনীর নিজের তিন তলা বাড়িতে শোভা গড়ে তুলেছেন মাদকের হাট। নিয়মিতই সেখানে বসে মাদকের আখড়া। তার স্বামী মো. আইয়ূব আলীও চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। দুই ছেলে শান্ত ও শামীমও নেমেছেন মায়ের দেখানো পথে। তবে বড় ছেলে শান্ত জেল থেকে বেরিয়ে পাড়ি জমিয়েছেন বিদেশে। শুধু ছেলে নয়, মেয়ে তানিয়া ও তার জামাই আরমানকেও পারিবারিক ব্যবসায় সম্পৃক্ত করেছেন শোভা। ছয় সদস্যের এই সিন্ডিকেট ইয়াবা, গাঁজা, হেরোইনসহ সব ধরনের মাদকদ্রব্যই বিক্রি করে আসছে। অপকর্ম ঢাকতে স্থানীয় পুলিশসহ প্রভাবশালীদের মাসোহারা দেন নিয়মিত।

গত বুধবার ওহাব কলোনীতে সরেজমিনে দেখা যায়, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানের মধ্যেও হাত বাড়ালেই পাওয়া যাচ্ছে গাঁজা। তবে অভিযান শুরুর পর পরিবারসহ গা ঢাকা দিয়েছেন শোভা। তবে এই মাদকরানী ছাড়াও বেশ কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী ওই এলাকা দাপিয়ে বেড়ান। শোভা পলাতক থাকায় তাদেরই বেশি লাভ হয়েছে।

ওহাব কলোনীতে প্রায় ১৫ হাজারের বেশি মানুষের বাস। কিন্তু মাদকের কারণে দিশেহারা এলাকার সাধারণ মানুষ। ভয়ে মুখ খুলেন না প্রভাবশালী মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে। গতকাল ঢাকা মহানগর পুলিশ ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩৩ মাদকব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে। কিন্তু শোভা এখনো নিরাপদে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সবুজবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল কুদ্দুস ফকির বলেন, ‘মাস তিনেক আগেই শোভাকে গ্রেপ্তার করা হয়। কিন্তু গ্রেপ্তার করতে গেলে সে অসুস্থ্যতার ভান ধরত। তার মধ্যে সে এতোই মোটা যে, রীতিমতো অ্যাম্বুলেন্সে করে উঠিয়ে আনতে হয়। জেল থেকে বেরিয়ে এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছে। তাকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here