পার্লামেন্টে অনাস্থা ভোটের পর স্পেনের প্রধানমন্ত্রী মারিয়ানো রাহয়কে উৎখাত করেছে দেশটির পার্লামেন্ট। খবর বিবিসির। এদিকে দেশটির নতুন প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন সোশ্যালিস্ট নেতা পেদ্রো সানচেজ। রাহয়ের দল একটি দুর্নীতি কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে যাওয়ার পর সানচেজই পার্লামেন্টে অনাস্থা ভোট আয়োজনের আবেদন জানান।

শুক্রবার (১ জুন) পার্লামেন্টে বিতর্কের দ্বিতীয় দিনে রাহয় তার পরাজয় স্বীকার করে নেন। এসময় তিনি এমপিদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আমি যেমন স্পেন পেয়েছিলাম, তারচেয়ে ভালো অবস্থায় রেখে যেতে পেরে গর্বিত।’

এর আগে শুক্রবারের ভোটাভুটিকে সামনে রেখে সানচেজ বলেছিলেন, আমরা দেশের গণতন্ত্রের ইতিহাসে একটি নতুন অধ্যায় রচনা করবো। আধুনিক স্পেনে রাহয়ই প্রথম প্রধানমন্ত্রী যিনি অনাস্থা ভোটে হেরে গেলেন। কনজারভেটিভ পিপল’স পার্টির এই নেতা ২০১১ সাল থেকে স্পেনের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আছেন।

পার্লামেন্টে অনাস্থা ভোটাভুটিতে ছোট কয়েক দলের সমর্থন পেয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করেন সানচেজ। সমর্থন দিয়েছে বাস্ক ন্যাশনালিস্ট পার্টি। পার্লামেন্টে ১৮০ জন এমপি এই অনাস্থা ভোটের প্রতি সমর্থন জানান। আর ১৬৯ জন এর বিপক্ষে অবস্থান নেন। অপর এক এমপি ভোট দানে বিরত থাকেন।

সোশ্যালিস্ট পার্টির নেতা সানচেজ অভিযোগ করেন, ৬৩ বছর বয়সী রাহয় দুর্নীতির সঙ্গে তার দলের সম্পৃক্ততার বিষয়ে দায়িত্ব নিতে ব্যর্থ হয়েছেন। এর আগে দুর্নীতির দায়ে কনজারভেটিভ পিপল’স পার্টির সাবেক একজন কোষাধ্যক্ষকে ৩৩ বছর কারাদণ্ড দেন মাদ্রিদের হাইকোর্ট।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here