১৯৮৬ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচে হ্যান্ড অব গোলের উদ্ভব। যে ম্যাচে আর্জেন্টিনার মুখোমুখি হয়েছিল ইংল্যান্ড। সেই ম্যাচে আর্জেন্টিনা ২-১ গোলে পরাস্ত করেছিল ইংলিশ শিবিরকে। আর্জেন্টিনার হয়ে দুটি গোলই করেছিলেন ম্যারাডোনা। এরমধ্যে একটি গোল শতাব্দীর সেরা, ফিফার জরিপ অনুযায়ী।

অন্যটি তেমনই বিতর্কিত গোটা শতাব্দী ধরেই। যেখানে অনেকটা লাফিয়ে উঠে মাথার উপর হাত নিয়ে বলটিকে জালে জড়িয়েছিলেন ম্যারাডোনা। অনেক চেষ্টা করেও তা নাগালে আনতে পারেননি ইংলিশ গোলরক্ষক পিটার শিলটন। তাৎক্ষণিকভাবে ইংলিশ ফুটবলাররা এই গোলের প্রতিবাদ করলেও রেফারি আলি বিন নাসার তা আমলে নেননি।

দীর্ঘদিন পর সেই হ্যান্ড অব গড নিয়ে কথা বলেছেন ম্যারাডোনা। রবার্ট পায়ার্সকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে যেখানে বেশ সরল স্বীকারোক্তিই তিনি করেছেন। বলেছেন, এখনকার মতো প্রযুক্তি বিশেষ করে ভিডিও অ্যাসিসটেন্ট রেফারি (ভিএআর) যদি তখন থাকত, নিশ্চিত আমি গ্রেফতার হতাম। কারণ ৮০ হাজার মানুষের সামনে এটা করা সম্ভব হতো না।

যদি ১৯৮৬ বিশ্বকাপে ভিএআর (ভিডিও অ্যাসিসটেন্ট রেফারি) থাকতো, তাহলে আর্জেন্টিনা ও ইংল্যান্ডের মধ্যকার ম্যাচটিতে কী ঘটতো? ম্যারাডোনা কোন রাখঢাক না রেখেই কৌতুকের সূরে বলেন, ‘আমি গ্রেফতার হয়ে যেতাম। কারণ ৮০ হাজার লোকের (স্টেডিয়ামে আগত দর্শক) সামনে আপনি চুরি করতে পারতেন না।’

পরের অংশটুকু আরও মজার করে বলেছেন ম্যারাডোনা, ‘আমি বা হাতটা আস্তে আস্তে উঠালাম, মাথার ঠিক পাশেই, টিক টিক। ফেনউইক (টেরি) চেঁচিয়ে বলল, হাত, কিভাবে হাত দিয়ে গোল। আমি তাকে বললাম, গোল।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here