বয়স তাদের একজনের ৮৫ এবং অপরজনের ৭৬ ৷ কিন্তু এই বয়সেও উৎসাহে কোনও ভাটা পড়েনি কলকাতার ফুটবল পাগল দম্পতি পান্নালাল চট্টোপাধ্যায় এবং তার স্ত্রী চৈতালি চট্টোপাধ্যায়ের ৷

১৯৮২ সালে প্রথম স্পেন বিশ্বকাপ দিয়ে শুরু ৷ তারপর পরপর ১০ টা বিশ্বকাপ শহরের আর পাঁচটা ফুটবল প্রেমীর মতো টিভিতে নয় , দেখেছেন স্টেডিয়ামের স্ট্যান্ডে বসেই ৷ নব্বই ছুঁই ছুঁই পান্নালালবাবু এবছরও রাশিয়াতে গিয়েই বিশ্বকাপ দেখবেন ৷ তবে এটাই হয়তো শেষবার ৷ কারণ ২০২২-এ কাতারে গিয়ে এরপরের বিশ্বকাপ দেখার মতো অবস্থায় আদৌ তারা থাকবেন কী না, সে ব্যাপারে নিশ্চিত নন পান্নালাল এবং তার স্ত্রী চৈতালি চট্টোপাধ্যায় ৷

প্রথম বার তারা বিশ্বকাপ দেখতে স্পেন গিয়েছিলেন ১৯৮২ সালে। তারপর থেকে যে দেশেই বিশ্বকাপের আসর বসুক না কেন, সে দেশেই উড়ে যান চট্টোপাধ্যায় দম্পতি। এবারও তার অন্যথা হচ্ছে না। বয়সের তোয়াক্কা না করেই রাশিয়া যাচ্ছেন তারা। বিশ্বকাপে যাওয়ার জন্য প্রতি বছরই একটু একটু করে টাকা জমান পান্নালালবাবু ৷ পেনশনের টাকা সংসারের খরচ বাবদ বাদ দিয়েও রাশিয়া যাওয়ার জন্য জমিয়ে রেখেছিলেন তিনি ৷ ৫ লক্ষ টাকার বাজেট নিয়েই বিশ্বকাপে পাড়ি জমাচ্ছেন চট্টোপাধ্যায় দম্পতি ৷

খিদিরপুরের ছোট, সরু গলিতে বাড়ি। ৩৬ বছর আগে লন্ডনে বন্ধুর বাড়িতে গরমের ছুটি কাটাতে গিয়েছিলেন তারা। সেখানেই বন্ধুর সঙ্গে মিলে পান্নালালবাবু ঠিক করেন স্পেনে বিশ্বকাপ দেখতে যাবেন। সেই উন্মাদনার রেশেই প্রতিবারই ছুটে যান বিশ্বকাপ চাক্ষুষ করতে। স্পেন, মেক্সিকো, ইতালি, আমেরিকা, ফ্রান্স, জার্মানি, জাপান-কোরিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, ব্রাজিলের পর এবার রাশিয়া ।

আগামী ১৪ জুন বিশ্বকাপ শুরুর দিনই রাশিয়া পাড়ি দিচ্ছেন তারা ৷ ফিরে আসবেন ২৮ জুন ৷ যদি না বিশ্বকাপের নক-আউট পর্বের টিকিট জোগাড় করে উঠতে পারেন পান্নালাল ও তার স্ত্রী চৈতালি দেবী ৷ মারাদোনার ‘হ্যান্ড অফ গড’ দৃশ্য মাঠে বসে দেখে ভুলতে পারেন নি কখনও ৷ এবার মেসি-রোনাল্ডোদের থেকেও ভাল ফুটবল দেখার প্রত্যাশায় রাশিয়ায় পাড়ি জমাচ্ছেন কলকাতার এই বৃদ্ধ দম্পতি ৷

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here