শাহনাজ পারভীন দীপ্তি। এই সুন্দরীর চালচলন ও জীবনযাপনে আভিজাত্যের ছাপ। চলেন উচু তলার মানুষদের সঙ্গে। নিজের রুপকে কাজে লাগিয়ে গড়েছেন টাকার পাহাড়। আলালের দুলালদের সঙ্গে পরকীয়া করাই তার ব্যবসা। আর তা টিকিয়ে রাখতে সমাজের বড় বড় লোকদের সঙ্গেও রয়েছে সখ্যতা।

দীপ্তির বয়স চল্লিশের মতো। অতি দরিদ্র পরিবারের মেয়ে। অথচ লালমনিরহাট কালিগঞ্জ থানার তুষভাণ্ডার ভূমি অফিসের বিপরীতে থাকেন দোতালা বাড়িতে, রুমে এসি। চড়েন মাইক্রোবাসে। রংপুর শহরের ধাপ এলাকায় ৬ শতক জমিও আছে তার।

স্কুলের গণ্ডি না পেরুলেও আধুনিক প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে ফেসবুকসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রয়েছে তার একাধিক অ্যাকাউন্ট। এগুলোই তার প্রতারণার ফাঁদ। পরিপাটি পোশাক ও গহনা দিয়ে সবসময় নিজেকে আকর্ষণীয় করে রাখেন। দেখলে যে কারো মনে হতে পারে, বড়লোকের মেয়ে। আর মনে হবেই বা না কেন, কী নেই তার! আছে গাড়ি-বাড়িসহ বিপুল অর্থবিত্ত।

দীপ্তির উত্থানের গল্প
দরিদ্র পরিবারের মেয়ে দীপ্তি নিজেকে বিকশিত করতে কাজে লাগান নিজের রুপ। কতিপয় নেতাদের সঙ্গে মেলামেশা শুরু করেন। নিজের রুপের জাদুতে বহু পুরুষের মন ভেঙে গুড়িয়ে দিয়েছেন। সেই সঙ্গে ভেঙেছেন অনেকের সংসারও। যেন পুরুষকে নিয়ে খেলতেই তার ভালো লাগে।

অভিযোগ রয়েছে, রাজধানীর ধানমণ্ডিতেও তার ফ্ল্যাট রয়েছে। সেখানে তিনি দেহ ব্যবসা করেন। মোবাইলে যোগাযোগ ও দিনক্ষণ ঠিক হলে লালমনিরহাট থেকে ঢাকার সেই ফ্ল্যাটে চলে আসেন খদ্দেরের সঙ্গে মিট করতে। আর বাকিটা সময় সেখানে দীপ্তির ছোট ভাই মাসতরী রহমান বিপুল (৩৭) ও কলেজপড়ুয়া বড় মেয়ে থাকেন।

স্থানীয়রা জানান, দীপ্তির কারণে একাধিক লোকের সংসার ভেঙেছে। তার বয়স হয়েছে, মেয়েও বিয়ের উপযুক্ত কিন্তু স্বভাব-চরিত্র পাল্টায়নি। তার স্বামীর নাম দীন মিয়া।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here