বিদেশ থেকে আসা বিভিন্ন যাত্রীর পরিবারের মোবাইল নম্বর কৌশলে সংগ্রহ করে ফোন দিয়ে বলত, ‘আপনার পরিবারের সদস্য বিদেশে যেতে পারবে না। এই মুহূর্তে বিকাশ করে টাকা পাঠান।’ নিরীহ মানুষ তার কথায় টাকা পাঠিয়ে দিত। এভাবে প্রতারণার জাল বিস্তার করে কোটি কোটি টাকার মালিক হয়েছে বলে স্বীকারও করেছে সে। ‘জিনের বাদশা’ পরিচয়দানকারী এই প্রতারকের নাম জাবেদ হোসেন (৪০)।

শুক্রবার সকালে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের বহির্গমন টার্মিনাল এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করেছে এয়ারপোর্ট আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন)। জাবেদের ‘প্রবলেম’ প্রতারণার শিকার এক যাত্রীর অভিযোগের ভিত্তিতে শনিবার সিভিল এভিয়েশনের নির্বাহী হাকিম ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে তাকে দুই বছরের কারাদণ্ড দেন। পরে তাকে কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

এর আগে ২০১৭ সালের ৪ নভেম্বর গাজীপুর থেকে একই অভিযোগে জাবেদকে গ্রেপ্তার করে সিআইডি। তখন সে বিমানবন্দরের কনকর্স হলের বেসরকারি নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান (টিকিট ইজারাদার) এমকে ট্রেডার্সে কর্মরত ছিল। মাত্র ১৫ দিন আগেই জামিনে বের হয় সে। এরপর জড়িয়ে পড়ে ‘প্রবলেম’ প্রতারণায়। এই স্বল্প সময়ের মধ্যেই টাকার বিনিময়ে সে সংগ্রহ করে বিমানবন্দরের নিরাপত্তা পাস। ওই পাস দিয়ে বিমানবন্দরের ভেতরে ঢুকে যাত্রীদের সঙ্গে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার প্রাক্কালে ধরা পড়ে এপিবিএনের হাতে।

আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আলমগীর হোসেন বলেন, জাবেদ দীর্ঘদিন ধরেই বিমানবন্দরের বহির্গামী যাত্রীদের সঙ্গে প্রতারণা করে বিকাশের মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নিয়ে আসছিল। মূলত বিমানবন্দরের ভেতর থেকে ফোনে যাত্রীদের ‘প্রবলেমের’ কথা জানানো হয় তার স্বজনদের কাছে। এরপর বিকাশ নম্বর দিয়ে হাতিয়ে নেওয়া হয় মোটা অঙ্কের টাকা। জাবেদ এই অভিনব প্রতারক চক্রের হোতা।

বিদেশগামী যাত্রীদের তথ্য ফরম পূরণ করার সময় এবং কথা বলে স্বজনদের ফোন নম্বরসহ প্রয়োজনীয় তথ্য নিত সে। ফ্লাইটে ওঠার পর বিদেশগামী যাত্রীর মোবাইল ফোন নম্বর বন্ধ হলেই শুরু হতো তার ‘প্রবলেম’ প্রতারণা। স্বজনদের ফোন করে সমস্যার কথা বলত, এমনকি কণ্ঠ নকল করে কেঁদেও স্বজনদের তা বিশ্বাস করাত সে।

সিআইডি কর্মকর্তাদের ধারণা, গত ৪ বছরে দেড় হাজারেরও বেশি বিদেশগামী যাত্রীর স্বজনদের কাছ থেকে প্রতারক জাবেদ হাতিয়ে নিয়েছে প্রায় ১০ কোটি টাকা। তথ্যপ্রযুক্তি বিশ্লেষণ ও জিজ্ঞাসাবাদ করে তার মাধ্যমে প্রতারিত ব্যক্তিদের শনাক্ত করা হচ্ছে বলেও জানান সিআইডি কর্মকর্তারা।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here