আর দিন দশেক পরেই পবিত্র ঈদুল ফিতর। এবারের ঈদে সরকারি চাকুরিজীবীদের মিলছে না লম্বা ছুটি। তাই গ্রামে গিয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে ঈদ উদযাপন নিয়ে অনেকেই আছেন শঙ্কায়।

ঈদে সাধারণত তিন দিন ছুটি পায় সরকারি চাকুরিজীবীরা। তবে রোজা পুরোপুরি ৩০টা হলে ছুটি একদিন বাড়ে।

এ বছর রোজা যদি ২৯টা হয় তবে এবার ঈদ হবে ১৬ জুন শনিবার। এ হিসেবে সাপ্তাহিক ছুটি বাদ দিলে ঈদের ছুটি মিলছে মাত্র একদিন ১৭ জুন রোববার। পরদিন ১৮ জুন থেকে যথারীতি আবারো সরকারি অফিসের কার্যক্রম শুরু হবে।

এ নিয়ে মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরসহ সকল সেক্টরে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে দেখা দিয়েছে ব্যাপক হতাশা।

অনেকেই বলছেন, পরিবার-পরিজন নিয়ে গ্রামে ঈদের ছুটি কাটাতে চেয়েছিলাম তা আর হচ্ছে না। বিশেষ করে ঈদের সময়ে রাস্তা-ঘাটে যে যানজট হয় তাতে করে এতো অল্প সময়ে গ্রাম থেকে ফিরে কর্মস্থলে যোগ দেয়া সম্ভব নয় বলে মনে করছেন অনেকেই।

তবে রোজা শুরুর আগে বুদ্ধ পূর্ণিমা, মে দিবস ও শবেবরাতের সাথে সাপ্তাহিক ছুটি মিলিয়ে অনেকেই দীর্ঘ ৯ আবার কেউ ৬ দিন ছুটি কাটিয়েছিল।

তবে এবার ঈদে ছুটি কম থাকায় সবার মন অনেকটাই খারাপ। আবার অনেকেই বলছেন, ওই ধরনের ছুটি ঈদে পেলে ভালো হতো।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে কাজ করেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা এই প্রতিবেদককে বলেন,শবে বরাতে সব মিলিয়ে ভালো ছুটি কাটানো হয়েছিল। সেজন্য এবার আর ছুটির আবদার করা সম্ভব নয়।

এবারের ঈদে বর্ধিত ছুটি দেয়া হবে কিনা এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের উপ-সচিব মনিরা হোসেন বলেন, ছুটির বিষয়ে এখন পর্যন্ত কিছু আলোচনা হয়নি। তবে এ বিষয়টা জনপ্রশাসন দেখে থাকে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here