মাদ্রাসা পড়ুয়া জেডিসির এক ছাত্রী ও দাখিলের ছাত্রের মধ্যে দীর্ঘদিনের প্রেম চলছিল। প্রেমিক কয়েকদিন ফোনে যোগাযোগ না করায় তার বাড়িতে গিয়ে বিয়ের দাবি নিয়ে অবস্থান নেন কিশোরী প্রেমিকা। তবে একদিন ও একরাত অবস্থান করেও সে কোনো আশ্বাস পায়নি। বরং কিছু টাকা ধরিয়ে দিয়ে বিদায় দেওয়া হয়েছে তাকে।

পরে স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আজহারুল ইসলাম পাঁচ লাখ টাকার বিনিময়ে বিষয়টি মীমাংসা করে কিশোরীকে বাড়ি পাঠিয়ে দেন। তবে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে মীমাংসা হলেও তার সিংহভাগই আওয়ামী লীগ নেতা, ইউপি সদস্য ও স্থানীয় থানা পুলিশের পকেটে গেছে বলে অভিযোগ ছাত্রীর বাবার। ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীর এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় চলছে।

মেয়েটির বাবা জানান, দুওসুও ইউনিয়নের ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা আজাহারুল ইসলাম, বর্তমান ইউপি সদস্য রাশেদুজ্জামান চৌধুরী, সাবেক ইউপি সদস্য আশরাফুল হক এক লাখ ৬০ হাজার টাকা দিয়ে মেয়েকে বাসায় রেখে গেছেন। বাকি টাকা তাদের পকেটে চলে গেছে।

তবে কিশোরী বলে, আমার বাবা টাকা নিতে পারে। কিন্তু আমি টাকা চাই না। যাকে দেহ ও মন দিয়েছি তাকে চিরদিনের জন্য স্বামী হিসেবে পেতে চাই।

সে জানায়, একই মাদ্রাসার দাখিলের ছাত্র দুওসুও ইউনিয়নের ফটিয়াপাড়া গ্রামের শহীদুল ইসলামের ছেলে শামীমের সঙ্গে দুবছর ধরে তার প্রেমের সম্পর্ক। মোবাইলে কথা বলাসহ তাদের মধ্যে বেশ কয়েকবার শারীরিক মেলামেশাও হয়। কিন্তু দুদিন ধরে কোন যোগাযোগ করছিল না তার কিশোর প্রেমিক।

এদিকে কিশোরের বাবা শহীদুল ইসলাম ফোনে জানান, উভয়পক্ষের লোকজনের উপস্থিতিতেই স্থানীয় মান্যগণ্যরা বিষয়টি ৩০০ টাকা ননজুডিসিয়াল স্ট্যাম্পে লিখিতভাবে মীমাংসা করে দিয়েছেন। এ বিষয়ে বর্তমান ইউপি সদস্য রাসেদুজ্জামান চৌধুরী বলেন- ছেলে-মেয়ে দুজনই নাবালক, বিয়ের বয়স হয়নি। তাই বিষয়টি মীমাংসা করে দেওয়া হয়েছে।

তবে দুওসুও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ৬নং ওয়ার্ড সভাপতি আজহারুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, ৫ লাখ টাকায় বিষয়টি মীমাংসা করা হয়েছে। মেয়ের বাবাকে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা দিয়ে দেওয়া হয়েছে। বাকি টাকা কী হলো, এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি ফোন কেটে দেন।

বালিয়াডাঙ্গী থানার পুলিশ কর্মকর্তা মিজানুর রহমানও বলেন, ঘটনার কথা শুনে স্থানীয় ইউপি মেম্বারকে জিজ্ঞাসা করেছিলাম। টাকার বিনিময়ে বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসা করা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন। তবে মেয়ের বাবা অভিযোগ দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান তিনি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here