লড়াইটা প্রায় শুরুই হতে যাচ্ছিল। শক্ত সমর্থ পূর্ণবয়স্ক সিংহ বনাম এক পাল সিংহী। মুহূর্তে চারদিকের পরিবেশ শান্ত। কানে আসছে শুধু শ্বাপদের বিকট গর্জন। ক্যামেরা তাক করে একরকম তৈরি সিংহদের থেকে নিরাপদ দূরত্বে থাকা পর্যটকেরা। বিকট একটা হুঙ্কার ছেড়ে সিংহীদের ঝাঁকে প্রায় লাফিয়ে পড়ল সিংহটা, তারপর…।

ঘটনাটা ইউক্রেনের ক্রিমিয়ার তাগান সাফারি পার্কের। দিন দু’য়েক আগে ঘটে যাওয়া এই ঘটনার ভিডিওটি সম্প্রতি ভাইরাল হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে নেট দুনিয়ায়। গোটা ভিডিও দেখে রীতিমতো তাজ্জব ভিউয়ারেরা। এমনটাও হয়!

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, বেশ হাল্কা মেজাজেই রোদ পোহাচ্ছে একদল সিংহী। হঠাৎই, তাদের দিকে দুলকি চালে এগিয়ে যেতে দেখা গেল একটা পূর্ণবয়স্ক সিংহকে। বেশ কয়েকটা কমবয়সী সিংহীকে লক্ষ্য করে সিংহটা দিল একটা লম্বা লাফ।

কিন্তু না, লড়াই বাধার আগেই সিংহদের দিকে উড়ে এল একটা ‘স্লিপার’। ব্যস, লড়াই খতম। শুধু তাই নয়, চপ্পল দেখে দুদ্দাড় করে পালাতে দেখা গেল সিংহ ও সিংহীদের। কমবয়সীরা আশ্রয় নিল সামনে দাঁড়িয়ে থাকা একটা জিপের পিছনে। এর পর চপ্পলের মালিক এসে যেন কিছুই হয়নি, ভাব দেখিয়ে চপ্পলটি নিয়ে নিলেন। চপ্পল ছুড়ে সিংহদের ঝগড়া থামালেন যে ব্যক্তি, তিনিই এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় রীতিমতো চর্চার বিষয়। তার সাহসিকতায় বিস্মিত ভিউয়ারেরা।

ব্যাপারটা ঠিক কী? রহস্যের সমাধান করলেন ওই ব্যক্তি নিজেই। তার নাম ওলেগ জাবকভ, তাগান সাফারি পার্কের ডিরেক্টর। ওলেগ জানিয়েছেন, তার ওই জুতা জোড়া নাকি ‘ম্যাজিক স্লিপার’। আর সিংহেরা ওই ‘ম্যাজিক স্লিপার’কে খুবই ভয় পায়।

তার কথায়, ‘যখনও সিংহেরা নিয়ম ভেঙে দুষ্টুমি করার চেষ্টা করে, আমি ওই স্লিপার ছুড়ে মারি। ওরা ভয় পেয়ে চুপ করে যায়। সিংহ বলে কি নিয়ম মানবে না!’ খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here