ভুয়া কাগজ দেখিয়ে মোংলা বন্দরের শেড থেকে ২ কোটি টাকা মূল্যের একটি বিলাসবহুল ল্যান্ড ক্রুজার প্রাডো গাড়ি নিয়ে গেছে প্রতারক চক্র। এতে সরকার হারিয়েছে প্রায় কোটি টাকার রাজস্ব। ঘটনা তদন্তে ৪ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

সেই সঙ্গে মঙ্গলবার রাতে বন্দরের সহকারী ট্রাফিক কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বাদি হয়ে মোংলা থানায় একটি মামলা করেছেন।

পুলিশ ও বন্দর কর্তৃপক্ষের একাধিক সূত্র জানায়, গত সোমবার বিকালে অফিস ছুটির পর বন্দরের সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট মেসার্স খাজা শিপিংয়ের পরিচয় দিয়ে মূল গেটের দায়িত্বে থাকা নিরাপত্তাকর্মীদের কাছে গাড়ি ছাড়ের কাগজপত্র দাখিল করেন একজন চালক। পরে ওই ব্যক্তি জেটির ৫নং ইয়ার্ড থেকে মুক্তা রংয়ের ল্যান্ড ক্রুজার প্রাডো ১৮ মডেলের একটি গাড়ি নিয়ে গেট থেকে সটকে পড়েন।

বিলাসবহুল ওই গাড়িটির খোঁজ পড়ে মঙ্গলবার সকালে অফিস চলাকালীন। ঘটনাটি দ্রুত বন্দর চেয়ারম্যানকে জানান ট্রাফিক বিভাগের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তারা। এ নিয়ে জরুরি বৈঠকও হয়। বৈঠক শেষে বন্দর থেকে গাড়ি নিখোঁজের বিষয়টি মৌখিকভাবে কাস্টমসের মোংলা শুল্ক বিভাগকে অবহিত করা হয়। পাশাপাশি মোংলা থানায়ও জানানো হলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রাথমিক তদন্ত শুরু করে।

এ বিষয় মোংলা বন্দর কর্তৃপরে প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা লেপ্টেনেন্ট কমান্ডার আলিম জানান, জাল জালিয়াতির মাধ্যমে বিলাসবহুল ওই গাড়িটি বন্দর থেকে বের করে নেয় সংঘবদ্ধ চক্র। গাড়ি ছাড়াতে যেসব কাগজপত্র ব্যবহার করা হয়, তার সবগুলোই ছিল ভুয়া। গাড়িটি পাচারের সঙ্গে বন্দরের কেউ জড়িত কিনা, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

তিনি আরও জানান, ঘটনা তদন্তে বন্দরের প্রধান প্রকৌশলী (যান্ত্রিক ও তড়িৎ) লেপ্টেনেন্টে কর্নেল মিজানুর রহমানকে আহ্বায়ক করে চার সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

মোংলা থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) মো. ইকবাল বাহার চৌধুরী জানান, বন্দর থেকে গাড়ি নিখোঁজের ঘটনা জানার পর পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরে সঙ্গে কথা বলেও রহস্য উদঘাটনের চেষ্টাসহ গাড়িটি উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

এর আগেও একই কায়দায় প্রতারক চক্র একটি বিএমডব্লিউ গাড়ি ও কন্টেইনার ভেঙে কোটি টাকার কাপড় চুরি করে মোংলা ব্ন্দরে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here