রাজধানীর শাহবাগ থেকে ধরে নেওয়ার প্রায় সাড়ে ৬ ঘণ্টা পর গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকারকে ছেড়ে দিয়েছে র‌্যাব। বুধবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ধরে নিয়ে গেলেও কিছু জিজ্ঞাসাবদ শেষে রাত সোয়া ১১টার দিকে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন র‌্যাবের লিগ্যাল ও মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান।

মুফতি মাহমুদ জানান, বিচারবহির্ভুত হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে ইমরানের বক্তব্যের বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। বিনাঅনুমতিতে বিভিন্ন কর্মসূচি পালনে কথাও জিজ্ঞাসা করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর তাকে অবশ্য আমরা ছেড়ে দিয়েছি।

এর আগে বিকেলে মাদকবিরোধী অভিযানে ‘বিনাবিচারে হত্যা’র প্রতিবাদে শাহবাগে পূর্বঘোষিত কর্মসূচিতে যোগ দিতে আসেন ইমরান এইচ সরকার। তখন জাতীয় জাদুঘরের সামনে ছাত্র ইউনিয়নের অনুষ্ঠান চলছিল। তিনি ছাত্র ইউনিয়নের নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় করছিলেন। এ সময় ঘটনাস্থলে একটি মাইক্রোবাস আসে। সাদা পোশাকধারী ৭ থেকে ৮ র‌্যাব সদস্য ‘একটু যেতে হবে’ বলে ইমরান এইচ সরকারকে মাইক্রোতে তুলে নেন।

তখন র‌্যাবের আরও চারটি গাড়ি সেখানে ছিল। গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা বাধা দিতে গেলে র‌্যাব সদস্যরা তাদের লাঠিপেটা শুরু করেন। এতে কয়েকজন আহতও হন। পরে তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।

জানা গেছে, র‌্যাবের মাদকবিরোধী অভিযানে টেকনাফ উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও পৌর কাউন্সিলর একরামুল হক নিহত হওয়ার পর পরিবারের পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের একটি অডিও ক্লিপ সরবরাহ করা হয়। একরামকে ‘ঠাণ্ডা মাথায় খুন করা হয়েছে’ বলে দাবি করে পরিবার। শুক্রবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ক্লিপটি ছড়িয়ে পড়লে দেশব্যাপী এ অভিযান নিয়ে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়।

এরপর গত রোববার শাহবাগে প্রতিবাদ ও অবস্থান কর্মসূচি দেয় গণজাগরণ মঞ্চ। তবে পূর্বানুমতি না নেওয়ায় সেদিনে পুলিশের বাধার মুখে প্রতিবাদ ও অবস্থান কর্মসূচি করতে পারেনি তারা।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here