এখন হতে ৫ শতাংশ ভ্যাট দিতে হবে উবার-পাঠাও বা অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিংয়ের ভাড়ার ওপর। এছাড়া অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং কোম্পানিগুলোকে দিতে হবে উৎসে কর।

আর এসব সেবায় যারা যানবাহন দেবেন তাদের টিআইএন (ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নম্বর) থাকতে হবে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট উপস্থাপন করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

বাজেট বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘বর্তমানে ইন্টারনেট বা সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে পণ্য বা সেবার ক্রয়-বিক্রয় যথেষ্ট বৃদ্ধি পেয়েছে। এ পণ্য বা সেবার পরিসরকে আরও বাড়াতে ভার্চুয়াল বিজনেস নামে একটি সেবার সংজ্ঞা সৃষ্টি করা হয়েছে।’

এর ফলে অনলাইনভিত্তিক যেকেনো পণ্য বা সেবার ক্রয়-বিক্রয় বা হস্তান্তরকে এ সেবার আওতাভুক্ত করা সম্ভব হবে। তাই ভাচুর্য়াল বিজনেস সেবার ওপর ৫ শতাংশ হারে মূসক (মূল্য সংযোজন কর) আরোপের প্রস্তাব করা হয়েছে।

আর অর্থবিলে মোবাইল ফোন অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং সেবার ক্ষেত্রে কর আদায়ে স্পষ্ট নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

এদিকে বিআরটিএর ‘এনলিস্টমেন্ট সার্টিফিকেট’ নিতে শুরুতে সাতটি অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং কোম্পানি আবেদন করেছে।
কোম্পানিগুলো হচ্ছে উবার লিমিডেট, পাঠাও লিমিডেট, সহজ লিমিটেড, চালডাল লিমিটেড, আকাশ টেকনোলজি লিমিটেড, গোল্ডেন রিং লিমিডেট এবং ও ভাই লিমিটেড।

চলতি বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি রাইড শেয়ারিং সার্ভিস নীতিমালার গেজেট জারি করা হয় এবং ১৫ জানুয়ারি রাইড শেয়ারিং সার্ভিস নীতিমালা অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা।

বর্তমানে রাইড শেয়ারিংয়ে উবার, পাঠাও ছাড়াও দেশে স্যাম, আমার রাইড, মুভ, বাহন, চলো অ্যাপে, ট্যাক্সিওয়ালা, ওই খালি, লেটস গো ইত্যাদি নামে বিভিন্ন কোম্পানি অ্যাপভিত্তিক এই পরিবহন সেবা দিচ্ছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here