অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত আজ দুপুর সাড়ে ১২টায় জাতীয় সংসদে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট উপস্থাপন করবেন। এর মধ্য দিয়ে টানা দশম বাজেট উপস্থাপনের নতুন রেকর্ড গড়তে যাচ্ছেন তিনি। দেশের ইতিহাসে এর আগে টানা নয়বার বাজেট পেশ করার একমাত্র রেকর্ড তারই।

এর আগে টানা ছয়বার বাজেট পেশের রেকর্ড গড়েছিলেন আওয়ামী লীগের সরকারের সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া। ১৯৯৬-৯৭ অর্থবছর থেকে ২০০১-০২ অর্থবছর পর্যন্ত টানা ৬টি বাজেট পেশ করেছিলেন তিনি।

অর্থমন্ত্রী এবারের ১০৩ পৃষ্ঠার বাজেট বক্তৃতার শিরোনাম ঠিক করেছেন ‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ।’

এবারের বাজেট নিয়ে ব্যক্তিগত জীবনে তার দেয়া বাজেটের সংখ্যা দাঁড়াবে ১২টি। সংখ্যার দিক থেকে এখন পর্যন্ত প্রয়াত অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমান তিন দফায় ১২টি বাজেট দিয়ে সর্বোচ্চ বাজেটদাতা হিসেবে শীর্ষে রয়েছেন। এবারের বাজেট উপস্থাপনের পর সাইফুর রহমানের রেকর্ড ছোঁবেন আবুল মাল আবদুল মুহিত।

এর আগে তিনি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শাসনামলে ১৯৮২-১৯৮৩ ও ১৯৮৩-১৯৮৪ অর্থবছরের বাজেট পেশ করেন।

মুহিতের হাতে গত দশ বছরে বাংলাদেশের বাজেটের আকার বেড়েছে চারগুণের বেশি। ২০০৯-১০ অর্থবছরে বাজেটের আকার যেখানে বাজেটের আকার ছিল ১ লাখ ১৩ হাজার ৮১৫ কোটি টাকা। চলতি ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে তা দাঁড়াচ্ছে ৪ লাখ ২৬৬ কোটি টাকায়। আর ২০১৮-১৯ অর্থবছরের নতুন বাজেটে তা ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার মতো হতে যাচ্ছে।

১৯৭১ সালে নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে পরাস্ত করে ১৬ ডিসেম্বরর দেশ স্বাধীন হয়। স্বাধীনতার পরেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশে প্রত্যাবর্তন করেন এবং তার নেতৃত্বে সরকার গঠিত হয়।

১৯৭২ সালে জাতীয় সংসদে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদ প্রথমটিসহ মোট তিনটি বাজেট ঘোষণা করেন। এর মধ্যে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর সামরিক সরকার এবং তাদের ছত্রছায়ায় বেশ কয়েকটি সরকার দেশ শাসন করেছে। এসময় দেশে জাতীয় সংসদ সচল ছিল না। সামরিক সরকারগুলো অধ্যাদেশ আকারে বাজেট পেশ করে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here