ঈদের আগেই বেতন বোনাসের দাবিতে প্রতিদিনই রাজধানী বা আশপাশের এলাকায় বিক্ষোভ করছেন পোশাক শ্রমিকরা। কারণ সব গার্মেন্টসে ঠিক সময়ে বেতন-বোনাস হওয়া নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন শ্রমিক নেতারা।

বেতন বোনাসের দাবিতে প্রতিদিনই কোথাও না কোথাও সড়ক অবরোধ, মানববন্ধন বা বিক্ষোভ হচ্ছে। দু’দিন আগে সাভারে সব শ্রমিক-কর্মচারীর বেতন-ভাতা ও ঈদ বোনাস ঈদের আগে পরিশোধের দাবিতে সমাবেশ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সমাবেশে বক্তারা বলেন, পোশাক শ্রমিকরা ঈদ উৎসব উদযাপন করতে পারবেন কি না তা নিয়ে সংশয় সৃষ্টি হয়েছে। অনেক গার্মেন্টস মালিক শ্রমিকদের বেতন-ভাতা না দিয়ে কারখানা বন্ধ করে দিয়েছেন। শ্রমিক নেতারা বলেন, বেসিকের সমপরিমাণ ঈদ বোনাসসহ ২৫ রোজার মধ্যে শ্রমিকের সব বেতন-ভাতা পরিশোধ করতে হবে।

গত বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জে ঈদের আগে শ্রমিকদের বেতন ও পূর্ণ বোনাস পরিশোধের দাবিতে মানববন্ধন করেছে জেলা শ্রমিক-কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদ।

এ সময় বক্তারা বলেন, বিভিন্ন সরকারি- বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দুই ঈদে বেসিক বেতনের সমান বোনাস দেয়ার রেওয়াজ থাকলেও সরকার শ্রম আইনে বোনাসের বিষয় উল্লেখ না করে শ্রমিকদের বঞ্চিত করার সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে। বলেন, উৎসব বোনাস কোনো দয়া নয়, এটা শ্রমিকের অধিকার। অবিলম্বে শ্রমিকদের প্রাপ্য পরিশোধের আহবান জানান তারা।

তারা বলছেন, কয়েকশ’ গার্মেন্টসে শ্রমিকরা বেতন পেলেও বোনাস পাবেন কিনা তা নিয়ে সংশয় আছে।

জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মচারী লীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম রনি বলেন, কিছু গার্মেন্টসে বেতন ও বোনাস দিয়েছে। তবে অনেক গার্মেন্টসেই বোনাস এখনো দেওয়া হয়নি। মধ্যমমানের এই গার্মেন্টসগুলো ঠিকমতো বোনাস দেবে কিনা তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন তিনি। এছাড়া একেক ফ্যাক্টরিতে একেক ধরনের বোনাস সিস্টেম উল্লেখ করেন তিনি বলেন, কেউ মূল বেতনের অর্ধেক দিচ্ছে, কেউ তারও অর্ধেক দিচ্ছে। এখানে একটা বৈষম্য কাজ করে। এদিকে কর্তৃপক্ষের নজর দেয়া দরকার বলে মনে করেন তিনি।

বেতন-বোনাদের দাবিতে বিক্ষোভ

বিগত পাঁচ বছরে পোশাক শ্রমিকদের ঈদের আগে বেতন নিয়ে কোনও সমস্যা হয়নি দাবি করে বিজিএমইএর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেছেন, এবারও ঈদের আগে ঠিক সময়ে তাদের বেতন দেওয়া হবে।

১০ জুনের মধ্যে পোশাক শ্রমিকদের মে মাসের বেতন ও উৎসব ভাতা পরিশোধ করা হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বিজিএমইএ’র তালিকাভুক্ত কারখানায় ৮ থেকে ৯ তারিখের মধ্যে বেতন পরিশোধ করে দেওয়া হয়। এ নিয়ম না মানলে সংশ্লিষ্ট পোশাক কারখানা তালিকা থেকে বাদ পড়বে।’

সারাদেশে তালিকাভুক্ত সাড়ে তিন হাজার পোশাক কারখানা রয়েছে। সিদ্দিকুর রহমান বলেন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, শ্রমমন্ত্রণালয় ও বিজিএমইএর ১৫টি টিম শ্রমিকদের বোনাস দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে।

তবে তিনি স্বীকার করেন, বোনাস সর্বনিম্ন কত দেওয়া হবে এর কোনও নিয়ম নেই। শ্রমিকরা যেন ভালভাবে ঈদের ছুটিতে বাড়ি যেতে পারে তার জন্য ভাগ ভাগ করে কারখানাগুলোতে ছুটি দেওয়া হবে বলে জানান সিদ্দিকুর রহমান। এদিকে, ঈদের ছুটির আগে শিল্পকারখানার শ্রমিকদের বেতন ভাতা পরিশোধের নির্দেশ দিয়েছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু। গত ২৯ মে সচিবালয়ে ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট বিষয়ক কমিটির সভা শেষে এই নির্দেশনা দেন তিনি। তবে ঠিক কত তারিখের মধ্যে শ্রমিকদের বেতন ভাতা দিতে হবে সে ব্যাপারে নির্দিষ্ট কোনো দিন-তারিখ বলে দেননি প্রতিমন্ত্রী। খবর ডয়চে ভেলের।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here