খাবার আর পানি ছাড়া শুধু হাওয়া খেয়েই নাকি দীর্ঘ ৭০ বছর ধরে বেঁচে আছেন ভারতের গুজরাট রাজ্যের ধর্মগুরু প্রহ্লাদ জৈন। গুজরাটের মহসেনার চারোদ গ্রামের এই যোগীর বয়স প্রায় ৮৮ বছর। গোটা এলাকায় মাতাজি নামেই প্রসিদ্ধ তিনি। দূর দূরান্তের মানুষ তার দর্শন করতে আসেন।

যদিও বিজ্ঞানীরা প্রথমে কিছুতেই সাধুবাবার এই দাবি মানতে রাজি হননি। একাধিক বিজ্ঞানী তার এই দাবি নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। সত্যি বলছেন কিনা তা জানার জন্য মাতাজির একাধিকবার ডাক্তারি পরীক্ষাও করিয়েছেন তারা। এমনকী দেশটির প্রাক্তন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি এপিজে আবদুল কালামও তাকে নিয়ে গবেষণা করেছেন।

২০১০ সালে প্রহ্লাদ জৈনের উপর পর্যবেক্ষণ শুরু করেছিল ইনস্টিটিউট অব সাইকোলজি এবং অ্যালায়েড সায়েন্স। এমনকী ডিআরডিওর তরফেও পর্যবেক্ষণ করা হয়। ১৫ দিন ধরে তার কার্যকলাপের উপর ক্যামেরা দিয়ে নজরদারি চালানো হয়েছিল। এছাড়াও তার এমআরআই, আল্ট্রাসাউন্ড, এক্সরে করা হয়।

রোদের মধ্যে দীর্ঘক্ষণ তার কাজকর্মের ভিডিও রেকর্ডিং করা হয়। যাবতীয় পরীক্ষা নিরিক্ষা করার পরেও তার দাবি খারিজের মত কোনও সূত্র বের করতে পারেননি বিজ্ঞানীরা। শেষে তারা সিদ্ধান্তে আসেন যে প্রহ্লাদ জৈন চরম পর্যায়ের অনাহার এবং পানি সংযম করেই বেঁচে রয়েছেন।

মাতাজির দাবি, তিনি ধ্যান করেই কাজের শক্তি পান। কোনও রকম প্রণামী না নিয়েই তিনি ভক্তদের সঙ্গে দেখা করেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি থেকে শুরু করে রাজনীতির একাধিক তাবড় নেতা তার দর্শনের জন্য আসেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here