শিল্পী শফিক তুহিনের করা তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা থেকে জামিন পেলেন জনপ্রিয় কণ্ঠ শিল্পী আসিফ আকবর। তবে তার এই জামিনের জন্য ১০ হাজার টাকা মুচলেকা দিতে হয়েছে। সোমবার ঢাকা মহানগর হাকিম কেশব রায় এই জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন।

এরপর কেন্দ্রীয় কারাগারে জামিন আদেশ পৌঁছানোর পর বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ছাড়া পান আসিফ। স্ত্রী সালমা আসিফসহ কাছের মানুষদের নিয়ে বাসায় ফেরেন। বাসায় ফিরে আসিফ তার ভেরিফাইড ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। সেখানে তিনি তার ভক্তদের উত্তেজনা পরিহার করতে বলেন।

জেলে থাকা অবস্থায় তিনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, কারা কর্তৃপক্ষ, কারাবন্দীদের ভালোবাসায় সিক্ত হয়েছেন উল্লেখ করে ধন্যবাদও জ্ঞাপন করেন। আসিফ লিখেন- আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, কারা কর্তৃপক্ষ, কারাবন্দী ভাইদের জন্য অনেক ভালবাসা। কারণ বাংলাদেশের একজন শিল্পী হিসেবে তারা আমার ব্যাপক যত্ন নিয়েছেন।

প্রথমে তিনি বাংলাদেশের সবাইকে সালাম এবং গারদীয় শুভেচ্ছা জানান। এরপর তার মরহুম বাবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

আসিফ মুক্ত
আসিফ মুক্ত

গত ৫ জুন গভীর রাতে গীতিকার, সুরকার ও গায়ক শফিক তুহিনের মামলায় এফডিসি এলাকায় নিজ স্টুডিও থেকে আসিফকে গ্রেপ্তার করে সিআইডির একটি টিম। পরদিন এ আসামির পাঁচ দিনের রিমান্ড ও জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠান আদালত। ওই মামলায় আসিফ ছাড়া আরও চার-পাঁচজন অজ্ঞাতনামা আসামি রয়েছেন।

মামলায় অভিযোগ, গত ১ জুন রাত ৯টার দিকে একটি চ্যানেলের ‘সার্চ লাইট’ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তিনি জানতে পারেন, আসিফ অনুমতি ছাড়াই তার সংগীতকর্মসহ অন্য গীতিকার, সুরকার ও শিল্পীদের ৬১৭টি গান সবার অজান্তে বিক্রি করেছেন। পরে তিনি বিভিন্ন মাধ্যমে যোগাযোগ করে জানতে পারেন, আসিফ তার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আর্ব এন্টারটেইনমেন্টের চেয়ারম্যান হিসেবে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে গানগুলো ডিজিটাল রূপান্তর করে প্রতারণার মাধ্যমে বিপুল অর্থ উপার্জন করেছেন।

ঘটনা জানার পর তিনি গত ২ জুন রাতে অনুমোদন ছাড়া গান বিক্রির বিষয়টি উল্লেখ করে তার ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে একটি পোস্ট দেন। তার সেই পোস্টের নিচে আসিফ অশালীন মন্তব্য ও হুমকি দেন। পরের দিন রাত ১০টার দিকে আসিফ তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে লাইভে আসেন। এতে শফিক তুহিনের বিরুদ্ধে অবমাননাকর, অশালীন ও মিথ্যা বক্তব্য দেন। আসিফ লাইভে শফিক তুহিনকে শায়েস্তা করবেন বলেও হুমকি দেন। পাশাপাশি ভক্তদের উদ্দেশে বলেন, শফিক তুহিনকে যেখানেই পাবেন, সেখানেই প্রতিহত করবেন।

আসিফের এই বক্তব্যের পর তার ভক্তরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শফিক তুহিনকে হত্যার হুমকি দেন। সেই লাইভ লাখ লাখ মানুষ দেখেছে। তিনি উস্কানি দিয়েছেন। শফিক তুহিনের মানহানি হয়েছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here