মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে ঐতিহাসিক বৈঠকে বসেছেন উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন। বিচিত্র চরিত্রের এই রাজনীতিককে নিয়ে বিশ্বের মানুষের কৌতুহলের অন্ত নেই।

জানা গেছে, সিঙ্গাপুরে আসার আগে নাকি কিম নিজের জন্য মোবাইল টয়লেট নিয়ে এসেছেন। কারণ নিজস্ব টয়লেট ছাড়া নাকি তিনি প্রাতকৃত্য সারতে স্বাচ্ছন্দ বোধ করেন না। এমনকি তার ব্যবহৃত মার্সিডিজ গাড়ির মধ্যেও নাকি আছে একটি টয়লেট।

উত্তর কোরিয়ার সংবাদমাধ্যম ডেইলি নর্থকোরিয়া ২০১৫ সালে এক প্রতিবেদনে জানায়, কিম জং উনের ব্যক্তিগত ট্রেনেই শুধু তার বিশ্রাম কক্ষ আছে এমনটা নয়। বরং তিনি মাঝারি অথবা ছোট আকারের যে বিশেষ বাহনে ভ্রমণ করেন তার সবগুলোই নকশা করা হয় পাহাড়ি অথবা তুষারাবৃত পথেও চলাচলের উপযোগী করে।

এছাড়া ভ্রমণকালে উত্তর কোরিয়ার এই নেতার শারীরিক অবস্থা নিয়ে সর্বোচ্চ গোপনীয়তা বজায় রাখা হয়। উত্তর কোরিয়ার গার্ড কমান্ডের সাবেক সদস্য লি ইয়ুন-কিওল বলেন, পাবলিক টয়লেট ব্যবহার করেন না উত্তর কোরিয়ার এই নেতা। বরং সফরের সময় তার আশপাশে সবসময় রাখা হয় ভাসমান টয়লেট।

তিনি বলেন, নেতার মল পরীক্ষা করলে তার শারীরিক অবস্থার তথ্য পাওয়া যেতে পারে; যে কারণে এই বর্জ্য যেখানে সেখানে ফেলা হয় না।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here