মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার প্রধান নেতা কিম জং-উনের মধ্যে ঐতিহাসিক বৈঠক নিয়ে বিশ্বের মানুষের তুমুল আগ্রহই বলে দেয়, কতটা গুরুত্ব সহকারে সবাই নিয়েছে একে।

চীর বৈরী ও শত্রুভাবাপন্ন এই দুই দেশের শীর্ষ ব্যক্তির মধ্যকার বৈঠকের দিকে তাই তাকিয়ে ছিল সবাই। আর সব জল্পনাকল্পনার অবসান ঘটিয়ে গতকাল সিঙ্গাপুরের স্যান্টোসা দ্বীপের কেপেল্লা হোটেলে বৈঠকে মিলিত হন ট্রাম্প ও কিম।

কিন্তু এ বৈঠকটি আয়োজনে কত অর্থ খরচ হলো সিঙ্গাপুরের? দেশটির প্রধানমন্ত্রী লি সিয়েন লুং জানিয়েছেন, দুই নেতার এই বিরল বৈঠক আয়োজনে তাদের খরচ হয়েছে ২০ মিলিয়ন ডলার বা দুই কোটি ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ১৭০ কোটি টাকার সমান। নিরাপত্তা, কিম-ট্রাম্পের হোটেল খরচ, খাবার ও আনুষঙ্গিক সব খরচ মিলিয়ে মাত্র ২৪ ঘণ্টায় এ অর্থ খরচ হয়েছে দেশটির।

কিন্তু এ বিনিয়োগ কী কাজে আসবে সিঙ্গাপুরের? প্রধানমন্ত্রী লি জানিয়েছেন, আন্তর্জাতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে এটি সিঙ্গাপুরের পক্ষ থেকে উপহার। তারা সানন্দেই এ খরচ মেটাবেন। বিনিময়ে আঞ্চলিক শান্তি প্রতিষ্ঠিত হবে ও বিশ্বে শান্তি স্থিতিশীল থাকবে, এটাই শুধু চাওয়া সিঙ্গাপুরের।

ঐতিহাসিক এ বৈঠকটি আয়োজন করে সিঙ্গাপুরও ইতিহাসের অংশ হয়ে গেল। সেজন্য দারুণ উচ্ছ্বসিত দেশটির প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ সবাই। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও কিম জং-উন দুজনই বৈঠকটি এমন সুন্দরভাবে আয়োজনের জন্য সিঙ্গাপুরকে ধন্যবাদ দিয়েছেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here