বিয়ে কিংবা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে মেকআপরে জন্য বা অন্য রূপচর্চায় নারীদের জনপ্রিয় গন্তব্য পারসোনা। কিন্তু প্রখ্যাত বিউটিশিয়ান কানিজ আলমাস খানের প্রতিষ্টিত এই প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে নকল, ভেজাল ও নিম্নমানের প্রসাধনী সামগ্রী ব্যবহারের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

এসব নিম্নমানের ভেজাল প্রসাধনী ব্যবহার করে অনেক নারীই চর্মরোগের শিকার হচ্ছেন বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। অথচ অভিজাত প্রতিষ্ঠানের নাম করে এ ধরনের প্রসাধনী দিয়ে রূপচর্চার মাধ্যমে তারা মোটা অংকের টাকা কামিয়ে নিচ্ছে।

মঙ্গলবার রাজধানীর ধানমন্ডি ২৭ নম্বরে পারসোনার বিউটি পার্লারটিতে অভিযান চালিয়ে তাদের এ জোচ্চুরি ধরা পড়ে। এ ঘটনায় প্রতিষ্ঠানটিকে চার লাখ টাকা জরিমানা করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

অভিযানের নেতৃত্বে ছিলেন অধিদপ্তরের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার এবং অভিযান পরিচালনা করেন সহকারী পরিচালক রজবী নাহার রজনী।

মনজুর শাহরিয়ার বলেন, দেশের নামকরা বিউটি পার্লার পারসোনা রূপসজ্জায় নকল প্রসাধনী ব্যবহার করছে। দেশের তৈরি নকল ও ভেজাল পণ্যকে বিদেশি পণ্য বলে গ্রাহকের সঙ্গে প্রতারণা করছে। শুধু তাই নয়, তারা মেয়াদোত্তীর্ণ প্রসাধনী ব্যবহার করছে যা ত্বকের জন্য ক্ষতিকর।

এসব অভিযোগে পারসোনা উইমেনকে আড়াই লাখ টাকা এবং পারসোনা ম্যানকে দেড় লাখ টাকাসহ মোট চার লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here