আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা বাকী। তারপরই পর্দা উঠছে ‘দ্যা গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’ খ্যাত বিশ্বকাপ ফুটবলের। উদ্বোধন ও ফাইনাল ম্যাচ হবে যে স্টেডিয়ামে, সেই লুঝনিকিকে ঘিরে চলছে আলোচনা। স্বাগতিক রাশিয়া এবং সৌদি আরবের মধ্যকার গ্রুপ পর্বের ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকে বরণ করে নিতে প্রস্তুত এই স্টেডিয়াম।

প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের আয়োজক রাশিয়া নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব জানান দিতে অভিনব সব ভেন্যু নির্মাণ করেছে। লুঝনিকি সেগুলোর মধ্যে অন্যতম। সব মিলিয়ে রাশিয়ার জাতীয় এ স্টেডিয়ামে সাতটি ম্যাচ হবে।

লুঝনিকি স্টেডিয়ামের অবস্থান মস্কোর প্রাণকেন্দ্রে কামোভনিকিতে। বিশ্বকাপকে সামনে রেখে ৮১ হাজার দর্শক ধারণক্ষমতার এ স্টেডিয়ামটির পুনর্নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছিল ২০১৩ সালে। শেষ হয় গত বছর। সংস্কার কাজে খরচ হয়েছে ৩৫০ মিলিয়ন ডলার। মস্কোর ঐতিহ্যবাহী স্টেডিয়ামটি ১৯৫৫ সালে নির্মাণ করা হয়।

এখানে শুধু ফুটবলই নয়, অ্যাথলেটিক্সসহ বিভিন্ন ইভেন্ট আয়োজন করা হয়ে থাকে। এমনকি বড় বড় কনসার্টগুলো এ স্টেডিয়ামেই অনুষ্ঠিত হয়। মাল্টি স্টেডিয়াম বললেও ভুল হবে লুজনিকিকে। বহু আন্তর্জাতিক ম্যাচের সাক্ষী এ স্টেডিয়ামে ১৯৬৩ সালের ১৩ অক্টোবর সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং ইতালির মধ্যে অনুষ্ঠিত ম্যাচে ১ লাখ ২ হাজার ৫৩৮ দর্শক উপস্থিত হয়েছিল, যা এখন পর্যন্ত লুঝনিকিতে সর্বোচ্চ দর্শক উপস্থিতির রেকর্ড।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here