ঈ‌দের ছুটি কাটিয়ে লাখো মানুষ গ্রামের বাড়ি থেকে ঢাকায় যার যার কর্মস্থ‌লে ফির‌তে শুরু ক‌রে‌ছেন। ফলে গত কয়েকদিনের ফাঁকা রাজধানী আবারো ব্যস্ত হয়ে উঠছে। আজ ভোর থেকে ঢাকার প্রতিটি বাসস্ট্যান্ডেই দেখা গেছে গ্রাম ফেরত মানুষের ভিড়। লঞ্চ ও ফেরিঘাটগুলোতেও ছিল ঢাকামুখী মানুষের চাপ।

সং‌শিষ্ট বি‌ভিন্ন সূ‌ত্রে জানা গে‌ছে, ‌বি‌ভিন্ন জেলার মানুষ অভ্যন্তরীণ রুটের বা‌সে রাজবাড়ী জেলার দৌলত‌দিয়া ও পাবনা জেলার কা‌জিরহাট ঘা‌টে আস‌ছেন। দৌলত‌দিয়া থে‌কে পাটু‌রিয়া ঘা‌টে ফে‌রি ও ল‌ঞ্চে এবং কা‌জিরহাট থে‌কে আরিচা ঘা‌টে লঞ্চ, স্পিড‌বোর্ট, ট্রলারসহ বি‌ভিন্ন নৌযা‌নে পার হচ্ছেন।

আর এ সব যাত্রী‌দের জন্য পা‌টু‌রিয়া ও আরিচা ঘাট থে‌কে সরাস‌রি ঢাকা চলাচল কর‌ছে দূরপাল্লার বাসসহ ‌বিআর‌টি‌সি, পদ্মা লাইন, নীলাচল, এনএন‌বি, যাত্রী‌সেবা ও লোকাল সা‌র্ভি‌সের তিন শতা‌ধিক বাস। সাধারণত এখান থে‌কে ঢাকার ভাড়া জনপ্রতি ৮০ থে‌কে ১২০ টাকা। অথচ বাড়‌তি যাত্রী‌দের চা‌পে সেখা‌নে দেড়গুণ থে‌কে দ্বিগুণ ভাড়া নেয়া হ‌চ্ছে ব‌লে অভি‌যোগ কর‌ছেন যাত্রীরা।

যাত্রীরা বলেন, ‌সি‌টিং সা‌র্ভিস ও গেইটলক বাস ব‌লে ভাড়া বে‌শি নেয়া হ‌চ্ছে। তারপরও বা‌সের ভেতর দাঁড়ি‌য়ে ও ছা‌দে যাত্রী নেওয়া হ‌চ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শ‌র্তে ক‌য়েকজন পরিবহন শ্রমিক ভাড়া বে‌শি নেয়ার বিষয়‌টি স্বীকার ক‌রে ব‌লেন, ‘এখান‌ থে‌কে ঢাকায় যাওয়ার যাত্রী অনেক। কিন্তু ঢাকা থে‌কে এখা‌নে আসার যাত্রী নেই বল‌লেই চ‌লে। খা‌লি বাস নি‌য়ে দ্রুত ঘা‌টে আস‌তে হ‌চ্ছে। এ কার‌ণে ভাড়া একটু বে‌শি নেওয়া হ‌চ্ছে। য‌দিও যাত্রীরা তা দি‌তে তেমন কোনো আপ‌ত্তি কর‌ছে না।

এদিকে, ঘাট এলাকায় প‌কেটমার, ছিনতাই ও অজ্ঞান পা‌র্টির থেকে রেহাই পেতে আইনশৃঙ্খলার বা‌হিনীর ক‌ঠোর তৎপরতা লক্ষ্য করা গে‌ছে। ঘাট দুটি‌তে এখন পর্যন্ত এ ধর‌নের কোনো ঘটনার অভিযোগ পাওয়া যায়‌নি ব‌লে জানি‌য়ে‌ছেন পু‌লিশ কর্মকর্তারা।

পাটু‌রিয়া নৌ-পু‌লিশ থানার ওসি আমিনুর রহমান জানান, ঘাট ও নৌরু‌টে পু‌লিশি তৎপরতা বৃ‌দ্ধি করা হ‌য়ে‌ছে, যা‌তে যাত্রী‌দের কোনো সমস্যা হ‌লে দ্রুত তারা সহায়তা পান। ত‌বে এখন পর্যন্ত কোনো যাত্রীই হয়রা‌নি কিংবা প‌কেটমার, ছিনতাই বা অজ্ঞান পা‌র্টির কবলে পড়ার অভি‌যোগ আসেনি আমাদের কাছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে আজ রাজধানীতে মানুষের সংখ্যা বাড়লেও তেমন যানজট ছিল না। কিন্তু দু’একদিনের মধ্যে গ্রামে থাকা সব মানুষ ঢাকায় ফিরে এলে কয়েকদিন তীব্র যানজট হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন অনেকে। সায়েদাবাদের বাস টার্মিনালের ঢাকা-চট্টগ্রামগামী বাস মালিক ও কর্মচারীরা জানান, ঈদের কারণে মালবাহী ট্রাক, কাভার্ট ভ্যান বন্ধ আছে। সেগুলো চালু হলেই যানজট তৈরি হবে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here