বগুড়ার শেরপুর উপজেলা সদরের আবাসিক এলাকায় গড়ে উঠা পতিতালয় থেকে তিন নারী ও চার খদ্দেরসহ ৭ জনকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার গভীর রাতে আকস্মিক অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলো- শেরপুর উপজেলার মদনপুর গ্রামের মৃত মঞ্জুর স্ত্রী হালিমা বেওয়া ওরফে ন্যাড়ানি (৫২), তার বোন স্বামী পরিত্যক্তা শাহিদা খাতুন (৪৫), ধুনকুন্ডি গ্রামের আবুল কাশেমের স্ত্রী রিক্তা খাতুন (৩০)।

এছাড়া সুত্রাপুর আখেরীপাড়া গ্রামের মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে হাফিজার রহমান (৪০), চকঘিনাই গ্রামের আজগর আলীর ছেলে ফজর আলী (৩০), মহিপুর নতুনপাড়া গ্রামের শাহ আলীর ছেলে রফিকুল ইসলাম (২০) ও নন্দীগ্রাম উপজেলার রুপিহার গ্রামের মৃত লিয়াকত আলীর ছেলে সাগর মিয়া (২২)।

এ বিষয়ে শেরপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) পুতুল মোহন্ত জানান, দীর্ঘদিন ধরেই উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের মদনপুর পশ্চিমপাড়ায় একটি বাড়িতে দেহ ব্যবসা চলে আসছিল। এরই পরিপ্রেক্ষিতে দেহ ব্যবসার দুই মক্ষীরানী হালিমা বেওয়া ও শাহিদা খাতুনসহ সাতজনকে আটক করে। এ সময় আরো ছয় নারী-পুরুষ পালিয়ে যায়।

আটককৃতদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও জানান এসআই পুতুল মোহন্ত।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here