বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই ইতিহাস গড়ল জাপান। প্রথম এশিয়ান দল হিসেবে লাতিন অ্যামেরিকার কোনো দলকে হারানোর রেকর্ড গড়ল ব্লু সামুরাই শিবির। ম্যাচে জাপান জিতেছে ২-১ গোলে।

২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে জাপানের মুখোমুখি হয়েছিল কলম্বিয়া। সেই ম্যাচে জাপান হেরেছিল ৪-১ গোলে। তার প্রতিশোধটা ভালোমতোই নিল সূর্যদোয়ের দেশটি। দুর্দান্ত এই জয় দিয়ে পুরো তিন পয়েন্ট নিয়ে ‘এইচ’ গ্রুপের শীর্ষে উঠে গেছে এশিয়ার পরাশক্তিরা।

জয় ছিনিয়ে নেওয়ার লক্ষ্য নিয়েই সারানস্কের মরদোভিয়া এরিনায় নেমেছিল ম্যাচের ফেভারিট কলম্বিয়া। কিন্তু সব কিছু ঠিক ঠাক মতোই এগিয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু ম্যাচের ৩ মিনিটের মাথায় আর্জেন্টাইন কোচ হোসে পেকারম্যানের সব হিসাব পাল্টে যায়। ওসাকার শট ঠেকিয়ে দেন ডেভিড অসপিনা। কিন্তু পরে শিনজি কাগাওয়া পরাস্ত করেন তাকে। নিশ্চিত গোল হাত দিয়ে ফিরিয়ে সব কিছু গড়বড় করে দেন কার্লোস সানচেজ। সরাসরি লালকার্ড দিয়ে তাকে মাঠ থেকে বের করে দেন স্লোভেনিয়ান রেফারি দামির স্কোমিনা, যা কিনা বিশ্বকাপের ইতিহাসের দ্বিতীয় দ্রুততম লাল কার্ড।

পেনাল্টি থেকে জাপানকে এগিয়ে দেন কাগাওয়া। নির্ভুল নিশানায় কলম্বিয়ার জালে বল জড়িয়ে উৎসবে ভাসিয়ে দেন জাপানি শিবিরকে। ৩৪ মিনিটে গোলের সুযোগ পান রাদামেল ফ্যালকাও। কিন্তু সুযোগ কাজে লাগাতে পারেননি কলম্বিয়ার এই তারকা স্ট্রাইকার। ৫ মিনিট বাদেই কাজের কাজ করে ফেলেন হোয়ান কুইনতেরো। তার বুদ্ধিদীপ্ত মাটি কামড়ানো শট গোল লাইন ও জাপানিজ গোলরক্ষককে অতিক্রম করে ফেলে। যদিও বারের ভেতর থেকে বল টেনে নিয়ে জাপানি গোলরক্ষক তা অস্বীকার করেন। ভিএআর প্রযুক্তি সহায়তায় শেষে নিশ্চিত হয় কলম্বিয়ার গোল (১-১)।

গোলের জন্য মরিয়া হয়েও পারেনি ১০ জনের দলে পরিণত হওয়া কলম্বিয়া। লাভ হয়নি গোলাতা কুইনতেরোর বদলে হামেস রদ্রিগেজ মাঠে নামিয়েও। উল্টো ৭৩ মিনিটে জয়সূচক গোল পেয়ে যায় জাপান। কেইসুক হোন্ডার ক্রস থেকে উড়ে আসা বলে মাথা ছুঁইয়ে জাপানের জয়ের রঙিন স্বপ্নটা সত্যি করে দেন ইউয়ু ওসাকা।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here