বিরলের মধ্যে বিরল?‌ নাকি বিরলতমের থেকেও কিছু বেশি?‌ ডিজর্জ সিনড্রোম–কে যে ঠিক কী বলা যায়, সেটা ভেবে পাচ্ছেন না চিকিৎসকরা। গোটা বিশ্বে মাত্র চারজন এই জিনগত রোগটিতে ভুগছেন।

এই রোগে আক্রান্তের সংখ্যা এতটাই কম যে, ঠিকভাবে কখনও নামকরণই করা হয়নি। সম্প্রতি লন্ডনে একটি পাঁচ বছরের মেয়ে এই রোগের শিকার হওয়ার পর থেকে ফের শিরোনামে চলে এসেছে এটি।

প্রাথমিকভাবে রোগটিকে বলা হতো স্প্রিন্টজেন সিন্ড্রোম। তারও আগে ২২ কিউ নামে পরিচিত ছিল রোগটি। মানবদেহে ২৩ জোড়া ক্রোমোজম থাকে। তার ২২ নম্বর ক্রোমোজোমটির কিছুটা অংশ ক্ষয়ে গেলে এই রোগ দেখা দেয়।

বর্তমানে এইরোগের চারজন রোগী রয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্র, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডে দেখা মিলেছে রোগীদের। প্রত্যেকের বয়সই পাঁচ বছরের নিচে। প্রত্যেকের শরীরেই ১৮০ থেকে ২০০টির কাছাকাছি রোগের লক্ষণ দেখা দিয়েছে।

লক্ষণগুলো হলো‌-চোয়ালের হাড় পরিণত না হওয়া, শ্বাসকষ্ট, কোনও কিছু শিখতে সমস্যা হওয়া, অস্বাভাবিক কম বৃদ্ধি, কথা বলতে সমস্যা হওয়া, ঘনঘন সংক্রমণে ভোগা। অটিজমের সঙ্গে লক্ষণের অনেক সাদৃশ্য থাকলেও চিকিৎসা একেবারেই আলাদা।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here