স্ত্রীর মুখে দাড়ি, গলার স্বরও পুরুষের মতো কিছুটা। তাই তার সঙ্গে আর সংসার করতে চান না ভারতের গুজরাটের এক ব্যক্তি। আবেদন করেন ডিভোর্সের। যদিও সেই আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন আদালত।

জানা গেছে, কয়েক সপ্তাহ আগেই রূপার (নাম পরিবর্তিত) সঙ্গে বিয়ে হয় মনিরের (নাম পরিবর্তিত)। কিন্তু কিছুদিন পরই স্থানীয় এক পারিবারিক আদালতে ডিভোর্সের আবেদন করেন মনির। দাবি করেন, তাকে ঠকানো হয়েছে। বিয়ের আগে মাত্র একবার তাদের মধ্যে দেখা হয়েছিল। তখন বোরখা পরে থাকায় তিনি রূপার মুখ দেখতে পাননি। কথাও হয়নি। রীতিবিরুদ্ধ হওয়ায় মুখ দেখার চেষ্টাও করেননি।

মনিরের অভিযোগ, বিয়ের পর রূপার আসল ‘রূপ’ দেখতে পান তিনি। এরপরই ডিভোর্সের আবেদন। যদিও তার সেই অভিযোগ গুরুত্ব দেননি বিচারক এনএম কারোভাদিয়া। তিনি বলেন, ‘বিষয়টি পুরোপুরি হরমন ঘটিত। চিকিৎসা করলে তা সম্পূর্ণ নির্মূল করা সম্ভব।’ এই যুক্তিতেই ডিভোর্সের আবেদনও খারিজ করে দেন আদালত।

অন্যদিকে রূপার অভিযোগ, ডিভোর্সের জন্য নানা রকম যুক্তি দিচ্ছেন মনির ও তার পরিবার। এমনকী, বা়ড়ি থেকে বের করে দেওয়ার চক্রান্ত করা হচ্ছে বলেও আদালতে অভিযোগ করেছেন তিনি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here