বিশ্বকাপে খেলা কোনো খেলোয়াড়ের মাধ্যমে রাশিয়ান কোনো নারী গর্ভবতী হতে পারলে তাকে ৩০ লাখ রুবল (৩৬ হাজার পাউন্ড; ৪৭ হাজার ডলার) অর্থাৎ সাড়ে ৩৯ লাখ টাকা দেওয়া হবে। সঙ্গে আজীবন হুপার বার্গার ফ্রি। বিজ্ঞাপন দিয়ে এমনটাই জানিয়েছে ফাস্ট ফুড চেইন বার্গার কিংয়ের রাশিয়ান বিভাগ। অবশ্য রুশ নারীদের নিয়ে এই বিতর্কিত বিজ্ঞাপনের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

বিশ্বকাপ ফুটবল ঘিরে এ বিজ্ঞাপন নিয়ে সমালোচনার মুখে বার্গার কিং কর্তৃপক্ষ তা সরিয়ে নিতে বাধ্য হয় বলে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। বিজ্ঞাপনটিতে বলা হয়েছিল, যে নারী ফুটবলারের জিন শরীরে বহন করবে, তিনি রাশিয়ান দলের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের সাফল্যের প্রবর্তক হবেন।

বিষয়টিতে নিয়ে সামাজিক মাধ্যম টেলিগ্রামে একটি নারীবাদী সংস্থা মন্তব্য করে, আমাদের সমাজে নারীদের অবস্থানের প্রতিফলন এই বিজ্ঞাপন।

বিবিসি বলছে, বিজ্ঞাপন ও মিডিয়ায় রুশ নারীদের যৌন শিকারী হিসেবে উপস্থাপন করা হয়। ক্রেমলিন সমর্থিত গণমাধ্যমের লেখায় রুশ নারীরা কিভাবে ‘বিদেশিদের প্রলোভন’ দেখাতে পারেন তা বিশেষভাবে চিত্রায়ন করা হয়।

রুশ নারীরা কীভাবে বিদেশিদের প্রলুব্ধ করতে পারেন তা নিয়ে ব্যাপক বিশ্লেষণও করা হয় বিভিন্ন পত্রপত্রিকায়। এই ধারার আলোচনা কিন্তু কমিউনিস্ট পরবর্তী রাশিয়ায় খুব একটা নতুন নয়। নারীবাদী মতবাদ রাশিয়ায় খুব একটা শোন যায় না।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, লিঙ্গ বৈষম্য নিয়ে রাশিয়ান টিভির অনুষ্ঠানগুলো গতানুগতিকের বাইরে খুব একটা সরব নয়। এমনকি কোনো অনুষ্ঠান যদি নারীবাদ বিষয়ে একটু সোচ্চারও হয়, সেটিকে রাশিয়ান ঐতিহ্যের বিরুদ্ধে পশ্চিমা ষড়যন্ত্র বলে সমালোচনা করা হয়।

এতকিছুর পরও এসবের বিরুদ্ধে রুশ নারীদের পক্ষ থেকে খুব একটা প্রতিবাদ দেখা যায় না। নারী অধিকার কর্মী অ্যালিওনা পোপোভা বলেন, রুশ নারীদের মধ্যে দৃঢ়তার অভাব রয়েছে।

তিনি বলেন, পুরুষরা যখন নারীকে দেহসর্বস্ব উপাধি দেয়, যৌন হয়রানির পক্ষে অজুহাত খোঁজে আর পারিবারিক সহিংসতার জন্যও নারীকেই দোষারোপ করে, তখন নারীরাও বিশ্বাস করা শুরু করে যে সেগুলোই আসলে সত্যি এবং এটিই নিয়ম।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here