হতেই পারে প্রাণীজগতে ভয়ঙ্করতম শিকারি কুমির। কিন্তু এই পৃথিবীরই কোথাও আবার কুমিরের পিঠে সওয়ারি হয় মানুষ। আফ্রিকার বুরকিনা ফাসো নামের দেশে এরকম দৃশ্য মোটেও বিরল নয়‚ যেখানে কুমিরের পিঠে বসে ঘুরে বেড়ায় স্থানীয় বাসিন্দারা।

দেশের রাজধানী ঔয়াগাদৌগৌ থেকে ৩০ কিলোমিটার দূরে আছে বাজৌল। সেখানে গ্রামের পুকুরে কিলবিল করে তীক্ষ্ণ দন্তরাজি শোভিত হিংস্র কুমিরের দল। তার গ্রামবাসীদের পোষা হাঁস যেন। জল থেকে উঠে এসে খায় মানুষের দেওয়া মুরগির মাংস। তাদের পাশে নিয়ে পুকুরে সাঁতার কাটে মানুষ।

গ্রামের পথে আরামসে রোদ পোহায় কুমিরের দল, ইচ্ছে হলে বসা যায় তাদের পিঠে। বেশি সাহসী হলে কেউ কেউ তো শুয়েও পড়ে। কোনওদিন কাউকে আক্রমণ করেনি কুমির এই গ্রামে। তারা হল গ্রামবাসীদের কাছে পবিত্র কুমির।

বাজৌল গ্রামে কুমিরের পিঠে এক কিশোর

প্রচলিত উপকথা বলে‚ মানুষ-কুমির এই সুসম্পর্ক শুরু হয়েছিল সেই পঞ্চদশ শতকে। সে সময় তীব্র ক্ষরায় ভুগছিল গোটা গ্রাম। ফুটিফাটা গ্রামে নাকি হঠাৎই একপাল কুমির দেখা যায়। তাদের কাছে গিয়ে গ্রামের মহিলারা দেখেন একটি পুকুর। প্রায় অলৌকিক ভাবে জলের সন্ধান পেয়ে গ্রামের বাসিন্দারা যেন হাতে স্বর্গ পান। সেই থেকে কুমির তাদের কাছে পবিত্র।

সেই সুদূর অতীত থেকে চলে আসছে আরও এক রীতি। প্রতি বছর নির্দিষ্ট সময়ে এই গ্রামে আয়োজিত হয় কুম লাকরে বলে এক বলী উৎসব। সেখানে গৃহপালিত পশু বলি দিয়ে তার মাংস উৎসর্গ করা হয় কুমিরদের। পাশাপাশি কুমির দেবতার কাছ থেকে প্রার্থনা করা হয় ধন সম্পত্তি ঐশ্বর্য এবং ভাল ফসল।

কুমির এই গ্রামের মানুষের কাছে পবিত্র

মনে করা হয়‚ এই কুমিররা আসলে গ্রামবাসীদের স্বর্গত পূর্বপুরুষ। তারা ফিরে আসেন উত্তরসূরীদের কল্যাণে। কুমির মারা গেলে যথাযোগ্য সম্মানে শেষকৃত্য করা হয়। যে কুমিরের কান্নাকে অশুভ বলে মনে করা হয় অন্যত্র‚ সেই কুম্ভীরাশ্রু অবধি এখানে গুরুত্বপূর্ণ। মনে করা হয় কুমিরের কান্না অশুভ কিছু সূচনা করে।

কুমিরের সুবাদে জমে উঠেছে পর্যটনও। মূলত কাছ থেকে কুমিরকে দেখা‚ কুমিরকে খাওয়ানোর মতো অভিজ্ঞতার জন্য ছুটে আসেন পর্যটকরা। এমনকী ভাগ্য সদয় হলে পর্যটকরাও সওয়ারি হতে পারেন কুমিরের পিঠে।

তবে পর্যটন যতটা বিকশিত হতে পারত ততটা হয়নি । মূল কারণ অবশ্যই অভ্যন্তরীণ সমস্যা এবং জঙ্গিহানা । সেইসঙ্গে আছে দুঃসহ ক্ষরা । কুমিরদের বাসস্থান পুকুরটিও শুকিয়ে আসছে । গ্রামবাসীদের আশা‚ জলের অভাব হলে ভবিষ্যতেও পথ দেখাবে কুমিরের দলই ।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here