প্রথম ম্যাচে তিউনিশিয়ার বিরুদ্ধে কষ্টার্জিত জয় (২-১)। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে দুরন্তরূপে ছিল ইংল্যান্ড। তারকা স্ট্রাইকার হ্যারি কেনের হ্যাটট্রিকে পানামাকে ৬-১ গোলে পরাজিত করেছে ইংলিশ শিবির। দারুণ এই জয়ে জি গ্রুপ থেকে এক ম্যাচ হাতে রেখেই রাশিয়া বিশ্বকাপের নক আউট পর্বের খেলা নিশ্চিত করল ১৯৬৬ বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়নরা।

নিজনি নভগোরোদ স্টেডিয়ামে ৮ মিনিটে কিরান ট্রিপিয়ারের কর্নারে চমৎকার হেডে প্রথম গোল করেন ইংল্যান্ডের স্টোনস। ২২ মিনিটে পেনাল্টি থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন হ্যারি কেন। ৩৬ মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে বাঁকানো শটে তৃতীয় গোলটি করেন লিনগার্ড।

৪০ মিনিটে নিজের দ্বিতীয় গোল করেন স্টোনস। প্রথমার্ধের অতিরিক্ত সময়ে পেনাল্টি থেকে নিজের দ্বিতীয় গোল করেন হ্যারিকেন। স্কোর তখন ৫-০।

৬১ মিনিটে সৌভাগ্যপ্রসুত এক গোলে হ্যাটট্রিক হয়ে যায় কেনের। রুবেন লফটাস-চিকের শট তার গোড়ালিতে লেগে দিক পাল্টে জালে চলে যায়। হ্যাটট্রিক পূর্ণ হ্যারি কেনের। চলতি বিশ্বকাপের তার মোট গোল ৫টি, যা সর্বোচ্চ। চারটি করে দ্বিতীয় স্থানে নেমে গেছে রোনালদো ও লুকাকু।

জিওফ হার্স্ট (১৯৬৬) ও গ্যারি লিনেকারের (১৯৮৬) পর ইংল্যান্ডের মাত্র তৃতীয় ফুটবলার হিসেবে বিশ্বকাপে হ্যাটট্রিক করার পরপরই মাঠ ছাড়েন হ্যারি কেন।

দ্বিতীয়ার্ধে ঢিলেঢালা ভাবে খেলতে থাকে ইংল্যান্ড। এই সুযোগ ৭৮ মিনিটে একটি গোল শোধ করে পানামা। গোলটি করেন ব্যালয়। শেষ পর্যন্ত ৬-১ গোলের বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ইংল্যান্ড। আগামী বৃহস্পতিবার গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে বেলজিয়ামের বিপক্ষে খেলবে ইংল্যান্ড। একই সময়ে তিউনিসিয়ার মুখোমুখি হবে পানামা।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here