নিখোঁজের এক মাস পর বাড়ির টয়লেটের ভেতরে মিললো ট্রাক চালক জামাল মল্লিকের (৪৫) মরদেহ। টয়লেটে পচা দুর্গন্ধের সূত্র ধরে বুধবার দুপুরে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী আয়েশা বেগমকে (৩৫) আটক করা হয়েছে।

মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার তেওতা ইউনিয়নের ষাইটঘর তেওতা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। দ্বিতীয় বিয়ে করায় স্ত্রী তাকে হত্যার পর বাড়ির টয়লেটে লাশ গুম করে বলে পুলিশ জানিয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আয়েশা বেগম পুলিশের কাছে হত্যার কথা স্বীকার করেছে।

নিহতের ভাই জয়নাল মল্লিক জানান, তার ভাই পেশায় একজন ট্রাক চালক। ৮ থেকে ৯ মাস আগে তিনি আরেকটি বিয়ে করেন। দ্বিতীয় বউ নিয়ে তিনি ঢাকায় থাকতেন। দুই ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে বড় বউ বসবাস করতেন ষাইটঘর তেওতা গ্রামে। মাসখানেক আগে জামাল মল্লিক বড় বউ ও সন্তানদের সঙ্গে দেখা করতে তেওতা আসেন। এরপর থেকেই তিনি নিখোঁজ ছিলেন। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাকে কোথাও পাওয়া যাচ্ছিল না। গত কয়েকদিন ধরে বড় বউয়ের বাড়ির টয়লেট থেকে পচা দুর্গন্ত বের হলে এলাকাবাসীর কাছে খবর পান তিনি। এরপর বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয়। পরে পুলিশ টয়লেটের ঢাকনা খুলে জামালের মরদেহ উদ্ধার করে।

শিবালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুল্লাহ সরকার জানান, এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী আয়েশা বেগমকে আটক করা হয়েছে।

প্রাথমিক জিঙ্গাসাবাদে আয়েশা বলেছেন- দ্বিতীয় বিয়ে করায় তাদের মধ্যে ঝগড়া বিবাদ লেগেই থাকতো। ঘটনার দিন স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়ার এক পর্যায়ে তিনি জামালের অণ্ডকোষ চেপে ধরেন। এতে জামালের মুত্যু হয়। পরে গুম করার উদ্দেশ্যে স্ত্রী তার মরদেহ টয়লেটে ফেলেন। মরদেহ ফেলে রাখার পরও টয়লেটটি পরিবারের সদস্যরা নিয়মিত ব্যবহার করতেন।

ওসি আরও জানান, এ ঘটনায় হত্যা মামলার প্রস্ততি চলছে। মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here