কোনো দেশে ইসলামের নামে সন্ত্রাসবাদ, আবার কোথাও ভগবান রামচন্দ্রকে হাতিয়ার করে ধ্বংসলীলা। ধর্মীয় এই চরম অসহিষ্ণুতার সময়ে এক ব্যতিক্রমী উপায়ে হিন্দু ও মুসলিমদের মধ্যে সম্প্রীতি বার্তা দিয়েছেন ভারতের ড. মাহি তালাত সিদ্দিকি নামে এক নারী অধ্যাপক। পুরো রামায়ণ মহাকাব্য উর্দুতে অনুবাদ করেছেন কানপুরের এই বাসিন্দা।

ড. মাহি তালাত জানান, দুই বছর আগে তাকে রামায়ণ উপহার দিয়েছিলেন বদ্রী নারায়ণ তিওয়ারি নামে কানপুরের এক বাসিন্দা। উপহার পাওয়ামাত্র মহাকাব্যটি অনুবাদ করার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। প্রথম ছয়মাস ব্যয় করেছেন রামায়ণ পড়ে তার অন্তর্নিহিত অর্থ বুঝতে। তারপরই শুরু করেন লিখতে। দেড় বছরের কঠোর পরিশ্রমের পর সফল হন তিনি।

তালাত আরও জানান, রামায়ণের উর্দু অনুবাদের কাজ শেষ করার পর অদ্ভূত মানসিক শান্তি পেয়েছেন তিনি। অন্য ধর্মগ্রন্থের মতো রামায়ণও খুব সুন্দর। রামায়ণেও লুকিয়ে রয়েছে শান্তি আর ভ্রাতৃত্বের বাণী। এর লেখনীও খুব সুন্দর, অনুবাদ করার সময় আমি মানসিকভাবে শান্তি পেয়েছি।

তার দাবি, দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে সম্প্রীতির নিদর্শন তৈরি করতেই তার এই উদ্যোগ। কিছু মানুষ আছেন যারা ধর্মের নামে উসকানি দিয়ে হিংসা ছড়ানোর চেষ্টা করেন। কোনও ধর্মই একে অপরকে ঘৃণা করতে শেখায় না। প্রত্যেকেরই উচিত প্রত্যেক ধর্মকে সম্মান জানানো।

তিনি আরও বলেন, সব ধর্মের মানুষেরই উচিত অন্য ধর্মকে বোঝা। মুসলিমরা যাতে রামচন্দ্র সম্পর্কে জানতে পারেন তা নিশ্চিত করতেই রামায়ণ লেখার এই উদ্যোগ।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here