মৃত্যু প্রতিটি প্রাণীর জন্য এক অনিবার্য সত্য। মৃত্যুর পর প্রিয়জনকে কবর দিতে সেরা জায়গাটাই বেছে নিতে চান স্বজনরা। অনেকে মৃতের কবর বাধাইও করে দেন শ্বেতপাথর দিয়ে। কিন্তু মাদক ও সন্ত্রাস কবলিত মেক্সিকোর কিছু কিছু এলাকা আছে, যেখানে নাকি জীবিততো দূরের কথা, গ্যাংস্টারদের কাছে মৃতেরাও নিরাপদ নয়। তাই মৃতের আত্মার শান্তির জন্য মেক্সিকোতে তৈরি হয়েছে বুলেটপ্রুফ কবর।

প্রায় পাঁচ লাখ ডলার মূল্যের এই বুলেটপ্রুফ কবর আসলে দেখতে বিলাশবহুল ডুপ্লেস বাড়ির মতো। যাতে বিত্তবানদের মৃতদেহ রাখা হয়।

জানা গেছে, এমন কবর অহরহই দেখা যায় মেক্সিকোর মাদক সন্ত্রাসের জন্য বিখ্যাত কুলিয়াকানে এলাকায়। সিনালোয়া এলাকার মাদক চক্রের কুখ্যাত সব সন্ত্রাসীদের কবর দেওয়া হয় এখানে।

সম্প্রতি বিবিসি অনলাইনে এসব কবর নিয়ে কথা বলেন সমাধিক্ষেত্রে ৩৩ বছর ধরে কর্মরত জর্জ (ছদ্মনাম)। তিনি বলেন, ‘সাধারণত প্রকৌশলীর নকশায় তৈরি হয় বিলাসবহুল এসব সমাধি। বাড়ির মতো দেখতে এসব সমাধি তৈরিতে অনেক সময়ই বুলেটপ্রুফ কাঁচ ব্যবহার করা হয়। কারণ এই সমাধিতে আসেন ওই মাদক সন্ত্রাসীদের ধনী পরিবারের সদস্যরা, তাদের নিরাপত্তার জন্যই এ ব্যবস্থা।

এটি কোনো আবাসিক এলাকা নয়, বরং সারি সারি বিলাশবহুল কবর

প্রিয়জনের সমাধিতে আসা পরিবারের সদস্যদের জন্য এয়ার কন্ডিশন, সিসিটিভি ক্যামেরা, স্যাটেলাইট টিভির ব্যবস্থাও রয়েছে। অনেক সমাধিই খুব জমকালো করে সাজানো। সাধারণত ক্রস এবং দেবদূতের প্রতীক দিয়ে এসব সমাধির বাইরের দিকটি সজ্জিত থাকে। অনেক সমাধির দরজায় থাকে অ্যালার্ম সিস্টেম। রাত হলে নিজে থেকেই সমাধির সামনে আলো জ্বলে ওঠে।’

জর্জ জানান, সবসময়ই এখানে কোনো না কোনো নতুন সমাধি তৈরির কাজ চলছে। কারণ মাদক ব্যবসায়ীরা মারা পড়ছেন ঝাঁকে ঝাঁকে। ২০০৭ সালে মেক্সিকোর মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে সেদেশের সরকার। তখন থেকে প্রায় দুই লাখ মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন এ পর্যন্ত। তাদের সমাধিতেই ভরে আছে কুলিয়াকান।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here