বিশ্বকাপের সবচেয়ে আকর্ষণীয় ও মর্যাদাপূর্ণ দুই ব্যক্তিগত পুরস্কার গোল্ডেন বুট আর গোল্ডেন বল। শিরোপার পাশাপাশি এই দুই সম্ভাব্য পুরস্কার কে পাবেন তা নিয়ে প্রতি আসরেই আসলোচনার শেষ থাকে না। তবে এবার যেন গোল্ডেন বুটের অংক অনেকটা সহজেই মিলিয়ে রেখেছেন ইংল্যান্ডের অধিনায়ক হ্যারি কেন।

কারণ গ্রুপ পর্ব ও দ্বিতীয় রাউন্ড মিলে ৪ ম্যাচে ৬ গোল করে এরইমধ্যে সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়ার দৌড়ে সবাইকে ছাড়িয়ে শীর্ষে উঠে বসে আছেন কেন।

যদিও বিশ্বকাপ শুরুর আগে গোল্ডেন বুটের দাবিদার হিসেবে সম্ভাব্য তালিকায় অনেকের নাম উঠে এসেছিল। মেসি, রোনালদো, নেইমার থেকে শুরু করে জার্মানির মুলার, ফ্রান্সের গ্রিজম্যানরা ছিলেন ওই তালিকায়। খুব বেশি আলোচনায় ছিলেন না ইংলিশ স্ট্রাইকার এবং টটেনহ্যাম হটস্পারের হ্যারি কেন। কিন্তু গোল করার দক্ষতায় যে তিনি সবাইকে পেছনে ফেললেন এক লহমায়।

অবশ্য কেনের ৬ গোলের মধ্যে মোট ৪টিই এসেছে পেনাল্টি থেকে। একটি নিজে করেছিলেন। অসাধারণ এক গোল ছিল তিউনিসিয়ার বিপক্ষে। পানামার বিপক্ষে করেন হ্যাটট্রিক। যার মধ্যে দুটিই পেনাল্টি থেকে। একটি আচমকা তার পায়ে লেগে। গোলের চেষ্টাও ছিল না তার। কিন্তু কী সৌভাগ্য! বল তার পায়ে লেগে জমা পড়েছিল পানামার জালে।

গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে বেলজিয়ামের বিপক্ষে মাঠে নামেননি কেন। না হয়, ওই ম্যাচে আরও গোল হয়তো পেতে পারতেন। যাই হোক, মাঠে নেমেছেন কলম্বিয়ার বিপক্ষে। তবে ম্যাচের ৫৭ মিনিটে বক্সের মধ্যে কেনকে ফাউল করলে রেফারি পেনাল্টি দেন। সেই পেনাল্টি থেকে গোল করেন কেন নিজে। সে সঙ্গে এখনও পর্যন্ত তার নিজের নামের পাশে লেখা হয়ে গেল ৬ গোল।

এবার যদি হ্যারি কেন সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার গোল্ডেন বুট জিততে পারেন, তাহলে তিনি হবেন গ্যারি লিনেকারের পর দ্বিতীয় ইংলিশ ফুটবলার। ১৯৮৬ বিশ্বকাপে গ্যারি লিনেকার ৬ গোল দিয়ে জিতেছিলেন সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার গোল্ডেন বুট। এবার পূর্বসুরির মান রাখতে যাচ্ছেন কেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here