ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ২০টি অস্থায়ী পশুর হাট বসবে। এছাড়া গাবতলীর স্থায়ী পশুর হাটেও উঠবে কোরবানির পশু। সব মিলিয়ে কোরবানির পশু কেনা-বেচার জন্য রাজধানীতে থাকবে ২১টি হাট। এর মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (ডিএসসিসি) এলাকায় ১৩টি এবং ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় বসবে ৭টি অস্থায়ী হাট।

দুই সিটি কর্পোরেশন সূত্রে জানা গেছে, অস্থায়ী হাটগুলোর মধ্যে ডিএসসিসির দরপত্র আহ্বান করা ১৩টি কোরবানির পশুর হাটের মধ্যে রয়েছে-খিলগাঁও মেরাদিয়া বাজার, উত্তর শাহজাহানপুর খিলগাঁও রেলগেট বাজারসংলগ্ন মৈত্রী সংঘ মাঠ, আরমানিটোলা খেলার মাঠ ও আশপাশের খালি জায়গা, কমলাপুর স্টেডিয়ামের আশপাশের খালি জায়গা, ঝিগাতলা হাজারীবাগ মাঠ, রহমতগঞ্জ খেলার মাঠ, ধুপখোলা ইস্ট অ্যান্ড ক্লাব মাঠ, পোস্তাগোলা শ্মশানঘাট সংলগ্ন খালি জায়গা, দনিয়া কলেজ মাঠ সংলগ্ন খালি জায়গা, শ্যামপুর বালুর মাঠ, সাদেক হোসেন খোকা মাঠ সংলগ্ন ধোলাইখাল ট্রাক টার্মিনাল ও সংলগ্ন খালি জায়গা, ব্রাদার্স ইউনিয়ন সংলগ্ন বালুর মাঠ এবং কামরাঙ্গীরচর ইসলাম চেয়ারম্যানের বাড়ির মোড় থেকে দক্ষিণ দিকে বুড়িগঙ্গা নদীর বাঁধ সংলগ্ন জায়গা।

কোরবানি উপলক্ষে এখনই প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন পশু বিক্রেতারা

এছাড়া ডিএনসিসির এলাকার অস্থায়ী ৭টি পশুর হাটগুলোর মধ্যে রয়েছে, বাড্ডা ইস্টার্ন হাউজিংয়ের (আফতাব নগর) পূর্ব পাশের খালি জায়গা, খিলক্ষেত ৩০০ ফুট সড়ক ও দক্ষিণ পাশের বসুন্ধরা প্রাচীরের মধ্যবর্তী খালি জায়গা, ভাটারা (সাইদ নগর), উত্তরা ১৫নং সেক্টরের প্রথম গোলচত্বর সংলগ্ন খালি জায়গা, মিরপুর সেকশন-৬ (ইস্টার্ন হাউজিংয়ের খালি জায়গা), মিরপুর ডিওএইচএস সংলগ্ন উত্তর পাশের সেতু প্রোপার্টি হাউজিংয়ের ফাঁকা জায়গা, মোহাম্মদপুর বুদ্ধিজীবী সড়ক সংলগ্ন (বছিলা) পুলিশ লাইনের খালি জায়গা।

এ বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা আব্দুল মালেক বলেন, আমরা ১৩টি অস্থায়ী পশুর হাট বসাবো। আগামী ১০ তারিখে প্রথম দরপত্র খোলা হবে। কাঙ্ক্ষিত দর না পেলে আমরা আরও ২ দফা দরপত্র আহ্বান করবো।

অন্যদিকে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বলেন, গতবারের তুলনায় এবার ইজারামূল্য বেড়েছে। এবার আমরা ডিএনসিসি এলাকায় ৭টি অস্থায়ী হাট বসাবো।

ডিএসসিসির সম্পত্তি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ডিএসসিসি এলাকার ১৩টি অস্থায়ী হাটগুলোর মোট সরকারি মূল্য ধরা হয়েছে ১২ কোটি ১৮ লাখ ৩৭ হাজার ৬৭৫ টাকা। এরমধ্যে লালবাগের রহমতগঞ্জ খেলার মাঠ সংলগ্ন খালি জায়গার জন্য সরকারি মূল্য ৯ লাখ ৭২ হাজার ১৯৭ টাকা, শিডিউল মূল্য দুই হাজার ৬০০ টাকা এবং পরিচ্ছন্নতা ফি ৪৮ হাজার ৬১০ টাকা। উত্তর শাহজাহানপুর খিলগাঁও রেলগেট বাজার এর মৈত্রী সংঘের মাঠ সংলগ্ন খালি জায়গার জন্য সরকারি মূল্য ধরা হয়েছে ৭ লাখ ৪৫ হাজার ৮৮৭ টাকা। শিডিউল মূল্য দুই হাজার ২০০ টাকা এবং পরিচ্ছন্নতা ফি ৩৭ হাজার ২৯৫ টাকা। খিলগাঁওয়ের মেরাদিয়া বাজার সংলগ্ন খালি জায়গার জন্য সরকারি মূল্য ধরা হয়েছে ৬৮ লাখ ২১ হাজার ২৭৮ টাকা। শিডিউল মূল্য ১৪ হাজার ৪০০ টাকা। হাট শেষে পরিচ্ছন্নতার জন্য ফি ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৪১ হাজার ৬৮ টাকা। কামরাঙ্গীরচর ইসলাম চেয়ারম্যানের বাড়ির মোড় থেকে দক্ষিণ দিকে বুড়িগঙ্গা নদীর বাঁধ সংলগ্ন খালি জায়গার জন্য ৫ লাখ ১৯ হাজার ৪০০ টাকা, শিডিউল মূল্য এক হাজার ৮০০ টাকা এবং পরিচ্ছন্নতা ফি ২৫ হাজার ৯৭০ টাকা। ঝিগাতলা হাজারীবাগ মাঠ সংলগ্ন খালি জায়গার জন্য ৭১ লাখ ৪০ হাজার ৮৬৭ টাকা, শিডিউল মূল্য ১৫ হাজার টাকা এবং পরিচ্ছন্নতা ফি ৩ লাখ ৫৭ হাজার ৪৪ টাকা। ব্রাদার্স ইউনিয়নের বালুর মাঠ সংলগ্ন খালি জায়গার জন্য সরকারি মূল্য এক কোটি ১৯ লাখ ১৫ হাজার ৫২৭ টাকা, শিডিউল মূল্য ২৪ হাজার ৬০০ টাকা এবং পরিচ্ছন্নতা ফি ৫ লাখ ৯৫ হাজার ৭৭৭ টাকা। কমলাপুর স্টেডিয়ামের রাস্তার পূর্বপাশ সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গার জন্য সরকারি মূল্য ৪০ লাখ ৫০ হাজার ১৯৫ টাকা, শিডিউল মূল্য ৮ হাজার ৮০০ টাকা এবং পরিচ্ছন্নতা ফি দুই লাখ ২ হাজার ৫১০ টাকা।

সাদেক হোসেন খোকা মাঠের পাশে ধোলাইখাল ট্রাক টার্মিনাল সংলগ্ন খালি জায়গার জন্য সরকারি মূল্য ধরা হয়েছে এক কোটি ১২ লাখ ৯৪ হাজার ৩০০ টাকা, শিডিউল মূল্য ২৩ হাজার ২০০ টাকা এবং পরিচ্ছন্নতা ফি ৫ লাখ ৬৪ হাজার ৭১৫ টাকা। পোস্তগোলা শশ্মানঘাট সংলগ্ন খালি জায়গার জন্য সরকারি মূল্য ২১ লাখ ৭১ হাজার ২৩৪ টাকা, শিডিউল মূল্য ৫ হাজার টাকা এবং পরিচ্ছন্নতা ফি ১ লাখ ৮ হাজার ৫৬২ টাকা। ধুপখোলার ইস্ট অ্যান্ড ক্লাব মাঠ সংলগ্ন খালি জায়গার জন্য সরকারি মূল্য ৭০ লাখ ১৪ হাজার ২০ টাকা, শিডিউল মূল্য ১৪ হাজার ৮০০ টাকা এবং পরিচ্ছন্নতা ফি ৩ লাখ ৫০ হাজার ৭১০ টাকা। শ্যামপুর বালুর মাঠ সংলগ্ন খালি জায়গার জন্য সরকারি মূল্য ৯২ লাখ ২২ হাজার ৩৭১ টাকা, শিডিউল মূল্য ১৯ হাজার ২০০ টাকা এবং পরিচ্ছন্নতা ফি ৪ লাখ ৬১ হাজার ১১৯ টাকা। আরমানিটোলা খেলার মাঠ ও আশেপাশের খালি জায়গার জন্য সরকারি মূল্য ৪ কোটি ১২ লাখ ৪৩ হাজার ৮৯৭ টাকা, শিডিউল মূল্য ৮৩ হাজার ২০০ টাকা এবং পরিচ্ছন্নতা ফি ২০ লাখ ৬২ হাজার ১৯৫ টাকা। দনিয়া কলেজ সংলগ্ন খালি জায়গার জন্য এক কোটি ৮৭ লাখ ২৬ হাজার ৪৯০ টাকা, শিডিউল মূল্য ৩৮ হাজার ২০০ টাকা এবং পরিচ্ছন্নতা ফি ৯ লাখ ৩৬ হাজার ৩২৫ টাকা।

অন্যদিকে ডিএনসিসি সম্পত্তি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ডিএনসিসি এলাকায় অস্থায়ী ৭টি পশুর হাটগুলোর সরকারি ইজারা মূল্য ধরা হয়েছে ১২ কোটি ৮৫ লাখ ৫৩ হাজার ৭৭ টাকা। এরমধ্যে উত্তরা ১৫ নং সেক্টরের ২ নং ব্রিজের পশ্চিমে গোলচত্বর পর্যন্ত সড়কের উভয় পার্শ্বের ফাঁকা জায়গা যার সরকারি মূল্যে ২ কোটি ১৫ লাখ ১৮ হাজার ২৭৮ টাকা ধরা হয়েছে। সেই সঙ্গে সিডিউল মূল্য ৪৩ হাজার ৬০০ টাকা এবং পরিচ্ছন্নতা ফি ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা। মিরপুর ডিওএইচ এর উত্তর পার্শ্বের সেতু প্রোপার্টি ও সংলগ্ন খালি জায়গার সরকারি মূল্য ১৫ লাখ ৯১ হাজার ৬০ টাকা। সিডিউল মূল্য ২০ হাজার ও পরিচ্ছন্নতা ফি ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা। মিরপুর সেকশন ২ (ইস্টার্ণ হাউজিং) এর খালি জায়গার সরকারি মূল্য ৮৩ লাখ ০৯ হাজার ৮১৯ টাকা। সিডিউল মূল্য ২০ হাজার ও পরিচ্ছন্নতা ফি ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা ধরা হয়েছে।

মোহাম্মদপুর বুদ্ধিজীবী সড়ক সংলগ্ন (বছিলা) পুলিশ লাইনের খালি জায়গা ৮৩ লাখ ০৯ হাজার ৮১৯ টাকা। সিডিউল মূল্য ২০ হাজার ও পরিচ্ছন্নতা ফি ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা। আশিয়ান সিটি হাউজিং পশুর হাটের সরকারি মূল্য ৭৫ লাখ ৯৬ হাজার ৯৮৪ টাকা। সিডিউল মূল্য ২০ হাজার ও পরিচ্ছন্নতা ফি ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা। খিলক্ষেত বনরুপা আবাসিক প্রকল্পের খালি জায়গা সরকারি মূল্য ১ কোটি ৫৬ লাখ ৮০ হাজার ৯৬৯ টাকা, সিডিউল মূল্য ৩১ হাজার ৮০০ ও পরিচ্ছন্নতা ফি ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা এবং ভাটারা (সাঈদ নগর) পশুর হাট সরকারি মূল্য ৫৫ লাখ ৩৪ হাজার ৯৬৭ টাকা। সিডিউল মূল্য ধরা হয়েছে ২০ হাজার টাকা, সেই সঙ্গে পরিচ্ছন্নতা ফি ধরা হয়েছে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here