রাশিয়ার দৃষ্টিনন্দন কাজান শহরের কাজান এরিনা স্টেডিয়ামে আজ রাতে দ্বিতীয় কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচে মুখোমুখি হবে দুই ফুটবল পরাশক্তি ব্রাজিল ও বেলজিয়াম। আজ বাংলাদেশ সময় রাত ১২টায় শুরু হবে খেলাটি।

এরইমধ্যে বেলজিয়ামকে হারিয়ে হারানোর হুঙ্কার দিয়েছে ‘হেক্সা’ জয়ের মিশনে থাকা নেইমার-মার্সেলোরা। তবে ব্রাজিলের বিপক্ষেও ‘ফুটবল যুদ্ধে’র ঘোষণা দিয়েছে বেলজিয়াম।

এদিকে ম্যাচের আগে ব্রাজিল কোচ তিতে তার শীষ্যদের আগেই জানিয়ে দিয়েছেন, বেলজিয়াম কেমন দল। ওরা সাপের মতো ফণা তুলতে পারে! তার প্রমাণও দিয়েছে জাপানের বিপক্ষে। ২-০ গোলে পিছিয়ে থেকে সেই খেলায় বেলিজয়াম জিতেছিল ৩-২ গোলে। বেলজিয়াম ফুটবলের ৪৮ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম দুই গোল হজম করে খেলায় ফিরে জিতেছে। কোচ তিতে বলেছেন, ‘আমি খেলাটা দেখেছি। বুঝতে পারি তারা কী করতে পারবে, আর কী পারবে না।’

তবে নামি ফরোয়ার্ড বিবেচনা করলে নেইমার-জেসুস-কুতিনহোরাই অবশ্য বেশি এগিয়ে। অবশ্য আক্রমণভাগ নয়, ব্রাজিল এখন পর্যন্ত বেশি স্বস্তিতে দৃঢ় রক্ষণের কারণে। প্রথম ম্যাচে সুইজারল্যান্ডের কাছে এক গোল হজম করেছিলেন অ্যালিসন। এরপর থেকে থিয়াগো সিলভা, মার্সেলো, মিরান্ডারা নিজেদের জালে আর কোনো গোলই ঢুকতে দেননি।

বিশ্বকাপের সাম্প্রতিক আসরের ইতিহাস বলছে গোল বেশি করলেই জেতা যায় না, যারা কম গোল হজম করে তাদেরই শিরোপা জেতার সম্ভাবনা বেশি থাকে। গতবার জার্মানি ৪টি, তার আগের দু`বার স্পেন ও ইতালি ২টি করে গোল হজম করেছিল।

অন্যদিকে জাপানকে হারিয়ে এবার আরেকটি কোয়ার্টার নিশ্চিত করার পর বেলজিয়াম কোচ তাই চোখ রেখেছেন আরও একধাপ ওপরে। ব্রাজিল ম্যাচকে অভিহিত করেছেন `স্বপ্নের লড়াই` হিসেবে।
প্রতিযোগিতামূলক ও প্রীতি ম্যাচ মিলিয়ে এ পর্যন্ত চারবার মুখোমুখি হয়েছে দুই দল। এর মধ্যে তিনবারই শেষ হাসি হেসেছে সেলেসাওরা। বিশ্বকাপে দেখা হয়েছে মাত্র একবার। ২০০২ সালে জাপান-কোরিয়ায় অনুষ্ঠিত সেই আসরে রোনালদো-রিভালদোর গোলে ২-০-র জয় পেয়েছিল ব্রাজিল। সেবার শেষ পর্যন্ত শিরোপাও হাতে তুলেছিল লাতিন আমেরিকার দেশটি। লক্ষ্যটা এবারও একই আছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here