বাঁচানো গেল না ভোলার অ্যাসিডদগ্ধ তানজিম আক্তার মালাকে। রাজধানীর সিটি হাসপাতালে শনিবার রাতে চিকিৎসাধীন তার মৃত্যু হয় বলে জানিয়েছেন বার্ন ইউনিটের প্রধান অধ্যাপক মো. শহিদুল বারী।

ভোলা সদর উপজেলার উত্তর দিঘলদী ইউনিয়নে গত ১৪ মে রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় মালা (১৬) ও তার ছোট বোন মারজিয়ার (৭) ওপর অ্যাসিড নিক্ষেপ করেন মহব্বত হাওলাদার অপু নামে এক তরুণ।

অ্যাসিডে মালার শ্বাসনালি পুড়ে যাওয়ার পাশাপাশি এক চোখ, এক কান ও নাকের খানিকটা গলে যায়। আরেক চোখের অবস্থাও ভালো ছিল না। তা ছাড়া মুখ থেকে বুকের নিচ পর্যন্ত গভীরভাবে দগ্ধ হয়।

চিকিৎসকরা জানান, শ্বাসনালিসহ তার শরীরের ২৪ শতাংশই দগ্ধ হয়েছিল। ভোলা থেকে প্রথমে তাকে মিরপুরে অ্যাসিড সারভাইভারস ফাউন্ডেশন (এএসএফ) হাসপাতালেই ভর্তি করা হয়। পরে সিটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে (আইসিইউ) শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে তার মৃত্যু হয় বলে জানান চিকিৎসক শহিদুল বারী।

জানা গেছে, ভোলা সরকারি কলেজের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ছাত্র অপুর সঙ্গে দুমাস আগে মোবাইল ফোনে রং নম্বরে পরিচয় হয় মালার। অ্যাসিড নিক্ষেপের সন্দেহজনক আসামি হিসেবে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে ২৬ মে জবানবন্দিতে দায় স্বীকার করেন অপু।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here