সাজগোঁজ ও পোশাকে আধুনিক, চালচলনেও আভিজাত্যের ছাপ। চোখাচোখি হলেই মিষ্টি হাসি আর পরিচিতের মতো ব্যবহার। এভাবেই কোনো বিয়ের অনুষ্ঠানে অতিথি সেঁজে ঢুকে পড়তো কয়েকজন নারী। এমনকি অনুষ্ঠানও মাতিয়ে রাখতো নেচে গেয়ে। কিন্তু এর ফাঁকেই তাদের সহযোগীরা অনুষ্ঠানে আসা অন্য অতিথিদের ব্যাগ থেকে ফোন, টাকা, স্বর্ণের চেইনসহ মহৃল্যবান সব সামগ্রী চুরি করে চম্পট দিত।

গতকাল সোমবার চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন এলাকা থেকে এই চত্রেক্রর ছয় সদস্যকে গ্রেফতার করেছে কোতোয়ালি থানা পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হলো-কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার সামলাপুর বাজারের রিপা আক্তার, মহেশখালী উপজেলার গোরকঘাটা মধ্যম গ্রামের চরপাড়ার হামিদা বেগম, তাদের দুই মেয়ে ফাতেমা বেগম ও ছফুরা বেগম, হামিদার ভাগ্নে নুর হোসেন ও চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার দোহাজারি জামেরজুরী গ্রামের জান্নাত আরা ফেরদৌস। এ সময় তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন অনুষ্ঠান থেকে চুরি করা ২৩টি মোবাইল ফোন সেট উদ্ধার করা হয়েছে।

কোতোয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন জানান, গ্রেফতারকৃতদের অধিকাংশই নারী হলেও এই চত্রেক্রর প্রধান একজন পুরুষ। কোথায় কোন কাবে অভিজাত পরিবারের বিয়ের অনুষ্ঠান আছে তার খোঁজ সেই খবর এনে দেয়। এরপর অতিথি বেশে নির্দি®দ্ব সময়ে এই নারীরা কাবে ঢুকে পড়তো। তাদের আন্তরিক কথাবার্তা আর চালচলনে কেউ সন্দেহই করতো না যে তারা চোর।

গত শুত্রক্রবার রাতে নগরীর লাভ লেনের স্মরণিকা কাবে একটি বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে এই চত্রেক্রর সদস্যরা ১৭টি মোবাইল ফোন ও ২৬ হাজার টাকা চুরি করে নিয়ে যায়। এরমধ্যে উদয়ন দাশ নামে এক ব্যক্তির স্ত্রীর একটি মোবাইল ফোন ও ২৬ হাজার টাকা ছিল। তার অভিযোগের ভিত্তিতেই পরে অভিযান চালাতে গিয়ে চত্ক্রটির সন্ধান পায় পুলিশ। কাবের সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করে চত্রক্রটিকে সনাক্ত করা হয়। পরে অভিযান চালিয়ে চত্রেক্রর ছয়জনকে আটকের পর তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here