রান্নার কাজ ছাড়াও এমন অনেক মসলা আছে যেগুলো ওষুধ হিসেবে ব্যবহার হয়। এগুলো শরীরের শক্তি বাড়াতেও দারুন কাজ করে।

শারীরিক কিংবা মানসিক সমস্যার কারণে মাঝেমধ্যে শরীর দুর্বল লাগতে পারে। তবে সেটা যদি নিয়মিত হয় তাহলে তা চিন্তার বিষয়। এজন্য চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া জরুরি। এছাড়া দৈনন্দিন কাজে ব্যবহৃত এমন কিছু মসলা আছে যেগুলো শক্তি বাড়াতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

দারুচিনি : বিভিন্ন ধরনের রান্নার স্বাদ বাড়াতে দারুচিনির জুড়ি নেই। বিশেষজ্ঞদের মতে, দারুচিনি শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে কারণ এতে শর্করা নিয়ন্ত্রণের দারুন ক্ষমতা আছে।যদি কারো ডায়াবেটিস থাকে বা কারও শরীরে যদি প্রি-ডায়াবেটিস দেখা দেয় তাহলে প্রতিদিন এক টুকরা করে দারুচিনি খেতে পারেন। এটি শরীরের শর্করা নিয়ন্ত্রণে সহায্য করবে। সেই সঙ্গে শক্তি বাড়াবে।

জিরা : দারুচিনির মতো জিরাও রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। ফাটিগো বা অবসন্ন ভাব দূর করার জন্যও জিরা বেশ কার্যকরী। এটা শরীরের শক্তি বাড়ায়। এছাড়া জিরা পাকস্থলীর জন্যও বেশ উপকারী। তাই শক্তি বাড়াতে প্রতিদিন জিরা খেতে পারেন।

গোলমরিচ: শক্তি বাড়ানোর আরেকটি কাযর্করী মসলা হচ্ছে গোলমরিচ। এটা ওজন কমাতে এবং শরীর থেকে টক্সিন বের করতে দারুন ভূমিকা রাখে। গোলমরিচে থাকা ক্যাপসাইসিন শরীরের তাপমাত্রা বাড়ানোর উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে। সেই সঙ্গে বিপাকেও সহায়তা করে। ফলে সারা শরীরে শক্তি ছড়িয়ে পড়ে।

এলাচ : সুন্দর গন্ধের জন্য এলাচ বিভিন্ন মিষ্টি জাতীয় খাবার তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। শক্তি বাড়ানোর জন্য এটা চায়েও ব্যবহৃত হয়।গবেষণায় দেখা গেছে, উচ্চ রক্তচাপের কারণে যারা বেশিরভাগ সময় অবসন্ন ও দুর্বল থাকেন তাদের শক্তি বাড়ানোর জন্য এটা বেশ উপকারী।

লবঙ্গ : দাঁত ব্যথা, খুশখুশে কাশি কিংবা নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ দূর করতে লবঙ্গের জুড়ি নেই। কয়েকটি লবঙ্গ একসঙ্গে নিয়ে চিবুলেই এ ধরনের সমস্যায় আরাম পাওয়া যায়।এতে মানসিক চাপ কমানোর দারুন সব উপাদান রয়েছে। এটি খেলে শরীর ও মন থেকে অবসন্ন ভাব দূর হয়। সেই সঙ্গে শরীরও চাঙ্গা হয়ে ওঠে। সূত্র : হেলদিবিল্ডার্জড

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here