ভারতের উত্তরপ্রদেশে এক নারীকে তার বাড়িতে ঢুকে গণধর্ষণের পর পাশের একটি মন্দিরে নিয়ে জীবন্ত পুড়িয়ে মেরেছে পাঁচ দুর্বৃত্ত। গণধর্ষণ ও খুনের অভিযোগে ওই পাঁচ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার (১৪ জুলাই) গভীর রাতে উত্তরপ্রদেশের সম্ভল জেলায় এই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানিয়েছে, দুই সন্তানের মা বছর পঁয়ত্রিশের ওই মহিলা রাজপুরা থানার অন্তর্গত একটি গ্রামে থাকতেন। পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগে ওই মহিলার স্বামী জানিয়েছেন, শনিবার রাত থেকেই এলাকায় প্রবল বৃষ্টি হচ্ছিল। সেই দুর্যোগের রাতেই বাড়ির দরজা ভেঙে ভিতরে ঢুকে পড়ে ওই পাঁচ জন। এর পর মহিলাকে ঘুম থেকে উঠিয়ে তার উপর চলে গণধর্ষণ।

রাজপুরা থানার কর্মকর্তা অরুণ কুমার জানিয়েছেন, ঘটনার পর ওই পাঁচ জন চলে গেলে প্রথমেই স্বামীকে ফোন করার চেষ্টা করেন ওই মহিলা। তাকে যোগাযোগ করতে না পেরে এর পর নিজের ভাইকেও ফোন করার চেষ্টা করেন। কিন্তু তাকেও যোগাযোগ করা যায়নি। অবশেষে এক আত্মীয়কে ফোন করে গোটা ঘটনাটা জানান তিনি। ফোনেই অভিযুক্তদের নাম-পরিচয়ও জানিয়ে দেন।

এর কিছু ক্ষণ পর ফের ওই বাড়িতে ফিরে আসে ওই পাঁচ জন। এ বার ওই মহিলাকে ঘর থেকে টানতে টানতে বার করে এনে কাছেই একটি মন্দিরে নিয়ে যায়। সেখানে মহিলার গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। তার চিৎকার শুনেও গ্রামবাসীরা কেউ সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসেননি বলে অভিযোগ।

মহিলার স্বামীর অভিযোগ, মৃত্যুর আগে পুলিশকে ফোন করারও চেষ্টা করেছিলেন তার স্ত্রী। কিন্তু কোনও সাহায্যই মেলেনি। গোটা ঘটনায় গ্রামবাসী এবং পুলিশের নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ উঠেছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here