কথা ছিল একটি ম্যাসেজ পাঠিয়েই মোবাইল সেট থেকে সিম কার্ডটি বের করে পানিতে ফেলে দেওয়ার। কিন্তু সেটি না করে মোবাইল সেটটি নিজের কাছেই রেখে দেয় হত্যাকারীর সহযোগী। আর তাতেই ভেস্তে যায় নারায়ণঞ্জে চাঞ্চল্যকর স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর চন্দ্র ঘোষকে হত্যার পর তথ্য লোপাটের সব পরিকল্পনা।

হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া বাপন ভৌমিক বাবু আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এমনটাই জানিয়েছেন। মঙ্গলবার নারায়ণগঞ্জ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আশিক ইমামের আদালতে প্রায় তিন ঘণ্টাব্যাপী ওই জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। পরে বাপনকে পাঠিয়ে দেওয়া হয় কারাগারে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, বাপন জবানবন্দিতে বলেছেন- প্রবীর হত্যা মামলার প্রধান আসামি পিন্টু গত ১৯ জুন রাতে আমাকে ডেকে নিয়ে বলে, ‘খুব ঝামেলায় আছি। প্রবীর ভারত চলে গেছে।’ তখন পিন্টুর অনুরোধে আমি কুমিল্লা সীমান্তবর্তী শিবেরবাজার এলাকায় চলে যাই। সেখান থেকে প্রবীরের মোবাইলের সিম ব্যবহার করে তার ভাই বিপ্লবের কাছে ম্যাসেজ পাঠাই। ম্যাসেজ দেওয়ার পরপরই মোবাইল সেট থেকে সিম কার্ডটি বের করে ফেলে দেই।

তবে পিন্টু আমাকে বলেছিল, ম্যাসেজ দেওয়ার পর সিমসহ মোবাইল সেটটি বন্ধ করে পানিতে ফেলে দিতে। কিন্তু মোবাইল সেটটি সুন্দর থাকায় আমি সিম কার্ড ফেলে দিয়ে সেটটি রেখে দেই। সেটি সঙ্গে নিয়েই আমি নারায়ণগঞ্জ শহরের কালীরবাজারে চলে আসি। ৭ জুলাই মোবাইল সেটটিতে আমার সিম প্রবেশ করে চালু করি। তার এক-দেড় ঘণ্টা পরই কালীরবাজার থেকে পুলিশ আমাকে গ্রেপ্তার করে।

এর আগে গত শনিবার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসানের খাস কামড়ায় প্রবীর ঘোষ হত্যাকাণ্ডের মূল আসামি পিন্টু দেবনাথের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। তিনি প্রবীর ঘোষকে একাই হত্যার পর সাত টুকরা করেন বলে স্বীকার করেন। তার অন্যতম সহযোগী বাপেনকে রিমান্ডে নিলে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। এতে ২১ মাস আগে আপহৃত স্বপন কুমার সাহা হত্যাকাণ্ডের কথাও বেরিয়ে আসে।

প্রবীর ঘোষ ও স্বপন হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবির এসআই মফিজুল ইসলাম জানান, গত ১৮ জুন রাতে নিখোঁজ হওয়ার ২১ দিন পর ৯ জুলাই স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর চন্দ্র ঘোষের সাত টুকরা লাশ উদ্ধার করে ডিবি পুলিশ। এ ঘটনায় বাপন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তবে তদন্তের স্বার্থে সবকিছু বলা যাচ্ছে না।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here