মৌলভীবাজারে তিন বান্ধবীর সাহসিকতা ও বুদ্ধির কারণে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেয়েছে এক কিশোরী। এখন সবার প্রশংসায় ভাসছে সচেতন ওই তিন কিশোরী।

গতকাল বৃহস্পতিবার মৌলভীবাজারের মোস্তফাপুর ইউনিয়নের শাহ হেলাল স্কুলের দশম শ্রেণির তিন সহপাঠী মিলে হাজির হয় মৌলভীবাজার মডেল থানায়। দেখা করতে চায় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সঙ্গে।

থানার ওসির সঙ্গে দেখা করে তারা জানায়, মোস্তফাপুর ইউনিয়নে তাদের এক বান্ধবীর জোর করে বাল্যবিয়ে দিয়ে দিচ্ছে পরিবার। বান্ধবীকে রক্ষার্থে পুলিশের সাহায্য চায় তারা। একইসঙ্গে পুলিশকে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ করায় পারিবারিক ও সামাজিক বিবেচনায় তাদের বান্ধবীর নাম ও এই ঘটনা যেন গোপন রাখা হয়। পরে পুলিশ গিয়ে সেই বাল্যবিয়ে ভেঙে দেয়।

পরে শুক্রবার ওসি বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দেয়ায় তা এলাকায় ভাইরাল হয়ে যায়।

মৌলভীবাজার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সোহেল আহমদ বলেন, আমি তাদেরকে কথা দিয়েছি তাই কারো নাম ঠিকানা প্রকাশ করতে পারছি না। এরা তিনজন দশম শ্রেণির ছাত্রী।

বৃহস্পতিবার তাদের অপর এক সহপাঠীর বয়স ১৮ হওয়ার আগেই বিয়ে দেয়া হচ্ছে জেনে উদগ্রীব হয়ে পড়ে। বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে হাজির হয় থানায়। তাদের সঠিক সঠিক তথ্যের কারণে একটি বাল্যবিয়ে বন্ধ হয়েছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here