যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মেকে হত্যাচেষ্টায় দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন নাইমুর রহমান নামে এক বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক। ২০ বছর বয়সি নাইমুর রহমানকে সন্ত্রাসী কার্যক্রমের প্রস্তুতি নেওয়ার দায়ে অভিযুক্ত করেছে দেশটির ওল্ড বেইলি কোর্ট।

পুলিশ বলছে, প্রথমে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর ডাউনিং স্ট্রিটের অফিসের গেটে বিস্ফোরণ ঘটানোর পরিকল্পনা ছিল নাইমুরের। তারপর বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে অফিসে ঢুকে ছুরি বা বন্দুক ব্যবহার করে হত্যা করা হতো তেরেসা মেকে।

১০ নং ডাউনিং স্ট্রিট ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীদের রাষ্ট্রীয় বাসভবন এবং অফিস। ভবনটি সবসময়ই কড়া নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা থাকে। তবে রাস্তার শেষ প্রান্তে পর্যটক ও দর্শনার্থীদের জন্য একটি গেট আছে।

লন্ডন নগর পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম কমান্ডের প্রধান ডিন হেডন বলেন, আমরা এমন এক ব্যক্তির কথা বলছি, যে পুলিশ সদস্যসহ অন্যান্য অনেক মানুষকে হত্যা, জখম ও পঙ্গু করে ফেলতে পারতো।’

গ্রেফতারকৃত নাইমুর রহমান

ব্রিটিশ নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা সংস্থা ‘এমআই ফাইভ’-এর সদস্যরা পরিচয় গোপন করে নাইমুরের সাথে অনলাইনে ঘনিষ্ঠ হন। নাইমুর ভেবেছিলেন তিনি আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আইএসের সদস্যদের সাথে কথা বলছেন। তখনই তার কাছ থেকে ডাউনিং স্ট্রিট পরিকল্পনার তথ্য পান ব্রিটিশ গোয়েন্দারা।

গত নভেম্বরে গোয়েন্দাদের একটি সাজানো বৈঠকে যোগ দিতে এলে তাকে আটক করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে দুটি নকল বিস্ফোরকও উদ্ধার করেন গোয়েন্দারা।

হেডন জানান, নাইমুরের এক মামা সিরিয়ায় গিয়ে আইএসে যোগ দিয়েছেন এবং তার কাছ থেকেই ব্রিটেনে হামলার পরিকল্পনার উৎসাহ পেয়েছেন নাইমুর।

পুলিশ বলছে, এই পরিকল্পনা দুই বছর ধরে কার্যকর করার চেষ্টা করছেন নাইমুর। কিন্তু গত বছর তার মামা সিরিয়ায় এক ড্রোন হামলায় মারা যাওয়ায় পরিকল্পনা ভেস্তে যায়।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here